মাত্র ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা দিয়ে আজই শুরু করুন এই ব্যবসা, মাস গেলে আয় হবে ৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকা

বর্তমান সময়ে বেশিরভাগ তরুণরা চাকরি না করে ব্যবসা করতে পছন্দ করেন। এর জন্য কম বিনিয়োগে স্টার্টআপই সবচেয়ে ভালো। এমন পরিস্থিতিতে, আপনিও যদি একটি স্টার্টআপ শুরু করার কথা ভাবছেন, তবে আমরা আপনাকে ১০,০০০ থেকে ১৫,০০০ টাকা বিনিয়োগের মাধ্যমে শুরু করা কিছু দুর্দান্ত ব্যবসা সম্পর্কে বলতে চলেছি। আসুন জেনে নেওয়া যাক সেই ব্যবসাগুলি সম্পর্কে।

ফল এবং সবজির ব্যবসা : আপনি যদি ৫,০০০ থেকে ১০,০০০ টাকা খরচ করে একটি ব্যবসা শুরু করতে চান, তাহলে ফল এবং সবজির স্টার্টআপ একটি দুর্দান্ত বিকল্প হতে পারে। এর জন্য, আপনাকে ৫,০০০ টাকার ফল এবং সবজি কিনতে হবে, বাকি টাকা দিয়ে আপনি একটি ছোট দোকান ভাড়া নিতে পারেন। এক সপ্তাহে এসব ফল ও সবজি বিক্রি করে ভালো লাভ করটে পারেন। এতে বিনিয়োগও কম হয়।

ফুলের ব্যবসা : ভারতে ফুলের ব্যবহার বেশি করা হয়, কারণ ভারতে মন্দির, মসজিদ সহ বিভিন্ন ধর্মীয় স্থানে ফুল বা মালা দেওয়া হয়, এছাড়াও জন্মদিন ও বার্ষিকীতে ফুলের তোড়া উপহার দেওয়া হয়, যার মাধ্যমে আপনি দৈনিক ২,০০০ থেকে ৪,০০০ টাকা আয় করতে পারেন। ফুলের ব্যবসা শুরু করতে ১০,০০০ থেকে ১৫,০০০ টাকা বিনিয়োগ করতে হয়।

ফাস্ট ফুডের ব্যবসা : বর্তমানে বড় শহর থেকে শুরু করে ছোট গ্রাম এবং শহরে ফাস্টফুডের চাহিদা অত্যধিক পরিমাণে বেড়েছে, যার কারণে লোকেরা চাউমিন, বার্গার এবং মোমোজ খেতে পছন্দ করেন। এমন পরিস্থিতিতে, আপনি যদি খাবারের ব্যবসায় আগ্রহী হন, তবে আপনি একটি ফাস্ট ফুড স্টল শুরু করে ভাল অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

লন্ড্রির স্টার্টআপ : আপনি ১০,০০০ থেকে ১৫,০০০ টাকার বিনিয়োগে লন্ড্রি স্টার্টআপ শুরু করতে পারেন, কারণ বড় শহরগুলির লোকেদের কাছে কাপড় ধোয়ার জন্য পর্যাপ্ত সময় নেই। এমন পরিস্থিতিতে, আপনি একটি ভিড় জায়গায় লন্ড্রি পরিষেবা শুরু করতে পারেন। এর জন্য আপনি বাড়িতে একটি ছোট প্রতিষ্ঠান তৈরি করতে পারেন।

আচারের ব্যবসা : ভারতের প্রায় প্রতিটি বাড়িতেই আচার খাওয়া হয়। যদিও বাজারে অনেক রকমের আচার পাওয়া যায়। এমন পরিস্থিতিতে, আপনি ১০,০০০ থেকে ১৫,০০০ টাকা বিনিয়োগ করে ঘরে বসে আচারের ব্যবসা শুরু করতে পারেন, যাতে আপনি আশেপাশের মহিলাদেরও অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন। বাজারে আচারের চাহিদা অনেক বেশি, যার কারণে প্রতি মাসে আপনি সহজেই ৩০,০০০ থেকে ৪০,০০০ হাজার টাকা আয় করতে পারেন।

পাঁপড়ের ব্যবসা : যে কোনো বিয়ের অনুষ্ঠানে পাঁপড় ছাড়া খাবার অসম্পূর্ণ। বাজারে অনেক রকমের পাঁপড় পাওয়া যায়। এমতাবস্থায়, আপনি যদি পাঁপড় তৈরির শৌখিন হন, তবে আপনি ঘরে বসেই এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন এবং আপনার নাম বা ব্র্যান্ডের সাথে বাজারে পাঁপড় বিক্রিও করতে পারেন।

এগুলি ছিল এমন কিছু ব্যবসায়িক ধারণা, যা ১০,০০০ থেকে ১৫,০০০ টাকা বিনিয়োগে শুরু করা যেতে পারে। এই ধরনের ছোট ব্যবসায় ক্ষতির ঝুঁকি কম থাকে। যদিও এই অর্থ বিনিয়োগের তুলনায় ভাল লাভ করতে পারা যায়।