Currency Notes: ৫০০ টাকার নোট নিয়ে বেরিয়ে এল বড় খবর, আপনার কাছে যদি থাকে তাহলে জানুন কী করবেন

বাজারে বেশ কিছু বছর হয়ে গেল নতুন ৫০০ টাকার নোট এসেছে। কিন্তু এই কয়েক বছরে নতুন ৫০০ টাকার নোটের সংখ্যা রীতিমতো বেড়ে গেছে। রিজার্ভ ব্যাংকের তরফ থেকে ইতিমধ্যেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, অন্যান্য আর্থিক বছরের তুলনায় চলতি আর্থিক বছরে ৫০০ টাকার নোটের সংখ্যা অনেক বেশি বেড়ে গেছে। কিন্তু এই বেড়ে যাওয়ার পাশাপাশি জাল নোটের সংখ্যা বেড়েছে অনেকাংশে। রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার রিপোর্ট অনুযায়ী, জাল নোটের সংখ্যা বর্তমানে বেড়েছে প্রায় ৩১.৩ শতাংশ।

৫ বছর আগে নরেন্দ্র মোদির নির্দেশে ৫০০ টাকা এবং ১ হাজার টাকার নোট বাতিল হয়ে গেছিল। প্রধানত কালোবাজারি আটকানোর জন্য এবং অসাধু মানুষদের সঞ্চিত কালোটাকা বাজেয়াপ্ত করার জন্য এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। তারপর বাজারে আসে নতুন ৫০০টাকার নোট। সরকারি দপ্তর থেকে জানানো হয় যে, এই নোটটি জাল করা যাবে না। কিন্তু বর্তমানে জানা যাচ্ছে, এই ৫০০ টাকার নোটও জাল হয়ে গেছে।

এবার প্রশ্ন আসতে পারে কিভাবে আপনি ৫০০ টাকার আসল এবং নকল নোটের মধ্যে পার্থক্য বুঝতে পারবেন। চলুন কিছুটা বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক। শুধুমাত্র চোখ কান খোলা রাখলেই আপনি বুঝতে পারবেন আপনার নোটটি আসল কি নকল।

আসল ৫০০ টাকার নোটে ৫০০ সংখ্যাটি দেবনাগরী অক্ষর লেখা থাকে।

নকল ৫০০ টাকার নোটটিকে আলোয় ধরলে ৫০০ লেখাটি আলোয় স্পষ্ট দেখা যাবে।

মহাত্মা গান্ধীর ছবির অবস্থান পুরনো নোটের থেকে অনেকটাই ভিন্ন।

লাল কেল্লার অবস্থান নোটের পেছনদিকে থাকবে।

নোটের পিছনের বাঁদিকে স্বচ্ছ ভারতের লোগো দেওয়া থাকে।

মহাত্মা গান্ধীর ছবির ডান পাশে থাকবে প্রতিশ্রুতি সহ গভর্নরের স্বাক্ষর, গ্যারেন্টি ক্লোজ এবং আর বি আই এর লোগো।

সর্বোপরি আপনাকে খেয়াল রাখতে হবে, আর বি আই এর যে দাগটি থাকে নোটের উপর সেটি যেন মহাত্মা গান্ধীর পাশে না থাকে, যদি মহাত্মা গান্ধীর পাশে এই দাগ থাকে তাহলে বুঝবেন আপনার এই নোটটি নকল।