ডাণ্ডার বদলে হাতে মোবাইল থাকলেই করা হবে সাসপেন্ড! পুলিশকে কড়া নির্দেশিকা যোগী আদিত্যনাথের..

যবে থেকে মোদি সরকার দেশের দায়ভার সামলেছেন তবে থেকেই দেশে এমন কিছু না কিছু বড় পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে যা এর আগে কোন সরকার স্বপ্নেও কল্পনা করেনি। তা সে দেশের আইন-শৃঙ্খলা কে নিয়েই করা হোক কিংবা দেশের সামরিক ও আর্থিক দিক থেকেই হোক না কেন। কিছুদিন আগেই মোদি সরকারের আমলেই পাস হয়ে গেল দেশের মোটরভেহিকেল আইন 2019 যেখানে দেশের ট্রাফিক ব্যবস্থার কথা মাথায় রেখেই নেওয়া হয়েছে কিছু বড় পদক্ষেপ।

তবে এখন যে বড় খবরটি বেরিয়ে আসছে সেটি উত্তরপ্রদেশের আইন-শৃঙ্খলা কে নিয়ে নেওয়া হয়েছে এবং যেটি নিয়েছেন সেই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। এদিন এক সমীক্ষার বৈঠকে তিনি উত্তরপ্রদেশের পুলিশদের কে কড়া বার্তা দেন। সাথে সাথে এই বৈঠকে উনি উত্তর প্রদেশের পুলিশদের কেউ কড়া নির্দেশ দেন। এদিন তিনি বলেন এই উৎসবের মরসুমে যেন লুটপাট আর চুরির ঘটনা যেনো সামনে না আসে। এর সাথে সাথেই তিনি পুলিশদেরকে পেট্রোলিং আরও বাড়ানোর জন্য সংবেদনশীল এলাকায় বেশি করে নজরদারি রাখার জন্যও নির্দেশ দেন।

মুখ্যমন্ত্রী যোগীর মিডিয়া মুখপাত্র এই তথ্য দেন।এইদিন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ বলেন পুলিশ কনস্টেবল এ হাতে মোবাইলে বদলে ডান্ডা চাই।তিনি বলেন এ রকম অনেকবারই দেখা গেছে যে ডিউটির সময় অনেক কনস্টেবলেই হাতে মোবাইলে নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যস্ত থাকে।তাই এই দিন মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ পুলিশ আধিকারিকদের উদ্দেশ্যে এক নির্দেশিকা জারি করে দিয়ে বলেন এবার থেকে সেইসব কনস্টেবলের হাতে মোবাইলে বদলে যাতে ডান্ডা দেখা যায় যেনো।

আর ভবিষ্যতে যদি এমন টা আবারো হয় তাহলে সেই কনস্টেবলের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ নেওয়া হবে সরকারের তরফ থেকে। এমনকি সাথে সাথে তিনি জানিয়ে দেন যদি এরকম ঘটনা ঘটে আর সেই ব্যক্তি যদি হাতে নাতে ধরা পড়ে তৎক্ষণাৎ সেই পুলিশকর্মীকে সাসপেন্ড করে দেওয়া হবে। এর সাথে সাথে এই দিন যোগী আদিত্যনাথ নবরাত্রি ও দশেরা উৎসব ভালোভাবে সুরক্ষিত অবস্থায় পালিত হওয়ার জন্যও পুলিশ অধিকারীকদের অনেক শুভেচ্ছা জানান।এর সাথে তিনি এও বলেন যে উৎসব শুধু একটা অনুষ্ঠান নয় এতে শাসন ও প্রশাসনের কর্মক্ষমতা প্রদর্শন করে এই উৎসবের সময়েই। পুলিশ আর প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ যোগদানের ফলেই সমস্ত উৎসব শান্তিপূর্ণ আর সুরক্ষিতভাবে পালন করা সম্ভব হয়ে থাকে দেশে।