মুকেশ আম্বানির উদ্যোগে এবার বিশ্বের বৃহত্তম চিড়িয়াখানা তৈরি করা হবে গুজরাটে

বিশ্বের সবচেয়ে বড় চিড়িয়াখানা (World’S Largest Zoo) এবার ভারতে। গুজরাটে এই চিড়িয়াখানাটি তৈরি করছে আম্বানি পরিবার। কোমোডো ড্রাগন থেকে শুরু করে চিতা, আফ্রিকার সিংহ, ভিন প্রজাতির পাখি সব থাকবে। জামনগরে বিরল প্রজাতির পশুপাখির সম্ভার নিয়ে চিড়িয়াখানা বানাচ্ছে রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ (Reliance Industries)।

 

সংস্থার কর্পোরেট ডিরক্টর পরিমল নাথাবনি বলেন, ‘আগামী ২০২৩ সালের মধ্যেই প্রস্তুত হয়ে যাবে এই চিড়িয়াখানা। সঙ্গে থাকবে একটি উদ্ধার কেন্দ্রও।’ সমগ্র চিড়িয়াখানা তৈরিতে মোট খরচ কত হবে, সে বিষয়ে এখনও কিছু জানাননি মুকেশ আম্বানি (Mukesh Ambani)। সূত্রের খবর,  আম্বানির এই বৃহত্তম চিড়িয়াখানার নাম ‘গ্রিনস জুলজিকাল রেসকিউ অ্যান্ড রিহেবিলেশন কিংডম।’ যেখানে থাকবে ফ্রগ হাউস, ড্রাগন আইল্যান্ড, ল্যান্ড অব রোডেন্ট, অ্যাকোয়াটিক কিংডম সহ একাধিক বিভাগ।

zoo

সেই বিভাগগুলিতে আনা হবে আফ্রিকার সিংহ, চিতা, জাগুয়ার, নেকড়ে, হিপ্পো, ওরাংওটাং, বেঙ্গল টাইগার সহ দেশ বিদেশের একাধিক প্রাণী। জানা গিয়েছে, ২৮০ একরেরও বেশি অঞ্চল জুড়ে গড়ে উঠবে এই চিড়িয়াখানা। চিড়িয়াখানাটির যাবতীয় দায়িত্ব মুকেশ আম্বানির কনিষ্ঠ পুত্র অনন্ত আম্বানি নিয়েছেন৷ ইন্দোনেশিয়ার ভয়ংকর  সরীসৃপ কেমোডো ড্রাগন নিয়ে পশুপ্রেমীদের মধ্যে কৌতূহলের বরাবর৷ এবার ভারতীয় চিড়িয়াখানায় তার দর্শন মিলবে জেনে  পর্যটকরা খুব উৎসাহী৷

আপনি কী জানেন! মাইনে থেকে কেটে নেওয়া মাত্র 25 টাকাতেই পাওয়া যায় কয়েক লক্ষ টাকার সুবিধা

এর আগেও দেখা গেছে, ইন্দোনেশিয়ার লো টাক কোং নামে এক উদ্যোগী ব্যক্তি  প্রায় ৪০ লক্ষ ডলার খরচ করে একটি চিড়িয়াখানা নির্মাণ করেছিলেন। জর্জিয়ার প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী বিদজিনা ইভানিশভিলি ডেনড্রোলজিকাল পার্কের জন্য প্রায় ৩০ লক্ষ ডলার বিনিয়োগ করেছিলেন। তাই আম্বানি পরিবারের এই উদ্যোগ প্রথম না হলেও ভারতের জন্য সুখবর।