বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দর হস্তাক্ষরের অধিকারী নেপালের এই ছোট্ট মেয়ে, লেখা দেখে চমকে উঠবেন আপনিও

সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে আমাদের চোখ এর সামনে এখন গোটা পৃথিবী। যে কোনো জায়গার যে কোনো প্রান্তের খবর এখন আমরা ঘরে বসেই জানতে পারি৷  আর এর দৌলতেই আমাদের চোখের সামনে উঠে আসে এমন কিছু ঘটনা যা আমাদের অবাক করে দেয়৷  তবে সোশ্যাল মিডিয়ার আরেকটি ভালো দিক হল অনেক অজানা প্রতিভা  সকলের সামনে উঠে আসার সুযোগ পাচ্ছে এইভাবে৷

আজ আপনাদের তেমনই এক প্রতিভার কথা জানাব৷  এমন একটা জিনিস দেখাব যা দেখলে নিজের চোখকেই বিশ্বাস করতে পারবেন না আপনারা। আমরা যারা লেখাপড়া করি তাদের সকলকেই ছোটবেলায় বলা হত সুন্দর করে লেখ৷ হাতের লেখা ভালো না হলে নম্বর পাবে না৷ এসব তাও আমরা শুনেই থাকি৷ হাতের লেখা যদি ভালোনা হয় তবে তা যেমন দেখতেও ভালো না হয়, তেমন পড়তেও ভালোলাগে না। অনেকসময় এই খারাপ হাতের লেখার (Hand Writing) জন্য পরীক্ষার ফল খারাপ হয়।

আঁচ আগে থেকেই পাওয়া যাচ্ছিল, তবে এবার নুসরতকে বিবাহবিচ্ছেদ এর নোটিশ পাঠাল নিখিল

নেপালের মেয়ে প্রকৃতি মল্লা তার হাতের লেখার জন্যই সারা বিশ্বের দরবারে সুপরিচিত। অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী প্রকৃতির হাতের লেখা হার মানাবে যেকোনোও কম্পিউটার ফন্টকে। তার হাতের লেখা যেন ছবির মতই সুন্দর । নেপালের এক ভদ্রলোক সেই হাতের লেখার ছবি তুলে সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করতেই সারা বিশ্বে তোলপাড় শুরু হয়৷

এই হাতের লেখা বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দর হাতের লেখার মর্যাদা পেয়েছে। প্রকৃতির লেখায় প্রতিটি অক্ষর এবং শব্দের মাঝে যেমন সমান জায়গা ফাঁকা রাখা রয়েছে, তেমনি প্রতিটি ফন্টের উচ্চতাও এক। মুক্তোর মত হস্তাক্ষর কথাটা তার জন্য একেবারেই প্রযোজ্য৷

বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দর হস্তাক্ষর