কেন্দ্রের E-Shram Portal-এ নাম নথিভুক্ত করলেই শ্রমিকেরা পেয়ে যাবেন একগুচ্ছ পরিষেবা, বিস্তারিত জানতে

এবারে কেন্দ্র থেকে শুরু করা হচ্ছে প্রায় ৩৮ কোটি অসংগঠিত শ্রমিকের উদ্দেশ্যে SHRAM প্রকল্প। এই প্রকল্প শুধুমাত্র শ্রমিকদের কথা ভেবে শুরু করতে চলেছে কেন্দ্র ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গেছে শ্রমিকদের এই সুবিধা পেতে নাম নথিভুক্ত করা। কেন্দ্র থেকে ঘোষণা করা হয়েছে শুধুমাত্র SHRAM কার্ড থাকলেই এর মাধ্যমে একাধিক সুবিধা পেতে পারেন শ্রমিকরা। এই প্রকল্পের সুবিধা পাবেন পরিযায়ী শ্রমিক, নির্মাণকার্যের শ্রমিক, হকার ও পরিচারকের মত দেশের অসংগঠিত ক্ষেত্রের মানুষ যারা আছেন তারা।এই প্রথম কেন্দ্রের তরফ থেকে এই সুবিধা সর্বপ্রথম তৈরী করা হল যেখানে কেন্দ্রের তরফ থেকে সরাসরি শ্রমিকদের যুক্ত করা হবে। ইতিমধ্যেই উদ্বোধন হয়ে গেছে এই পোর্টালের। শ্রমিকদের রেজিস্ট্রেশন এর পরে তাদের একটি ইউনিভার্সাল অ্যাকাউন্ট এর নম্বর এর সাথে একটি ই-শ্রম কার্ড দেওয়া হবে। এই কার্ড থাকলে তারা যেকোন সময় কার্ডের সামাজিক সুরক্ষা স্কিম গুলি পেয়ে যাবেন। আসুন জেনে নিন এই প্রকল্পে কি কি সুবিধা পাবে শ্রমিকরা।

১) ৩৮ কোটি অসংগঠিত ক্ষেত্রের শ্রমিকদের এই প্রকল্পের মাধ্যমে ডাটাবেস তৈরী করা হবে। মূলত পরিচারিকা, দিন মজুর, পরিযায়ী শ্রমিক, ফুটপাথের দোকানি যারা তারা এই পোর্টালে নিজেদের নাম নথিভুক্ত করাতে পারবে।

২) ১৪৪৩৪ এই টোলফ্রি নাম্বারটি দেওয়া হয়েছে শ্রমিকদের জন্য যদি কোন কারণে রেজিস্টার না করতে পারে সেক্ষেত্রে এই নম্বর এ ফোন করলে পাওয়া যাবে সেই সমস্যার সমাধান।

৩) এখানে নাম রেজিস্টার করতে শ্রমিকদের ফোন নাম্বার, জন্ম তারিখ, সোশ্যাল ক্যাটাগরি, শহর বা গ্রাম সেই সমস্ত তথ্য দিতে হবে, সাথে শ্রমিকরা তাদের নিজেদের আধার কার্ড নাম্বার ও ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট এর ডিটেইলস দিয়ে এই পোর্টালে রেজিস্টার করতে হবে।

৪) নাম রেজিস্ট্রেশন হয়ে গেলে কর্তৃপক্ষের থেকে ই-শ্রম কার্ড দেওয়া হবে। সেখানে ই-শ্রম কার্ডের নাম্বার ১২ সংখ্যার হবে। এই কার্ডের ইউনিভার্সাল নাম্বার গোটা দেশে গ্রহণযোগ্য বলে গণ্য করা হবে।

৫) কোন কারণে শ্রমিকদের দুর্ঘটনায় মৃত্যু হলে সেখানে পরিবার পিছু ২ লাখ টাকা পর্যন্ত টাকা দেওয়া হবে। কাজের মাঝে যদি কোন শ্রমিক বিকলাঙ্গ হয়ে যায় সেক্ষেত্রেও একই টাকা দেওয়া হবে। তবে দুর্ঘটনায় যদি আংশিক ক্ষতি হয় সেক্ষেত্রে ১ লাখ টাকা দেওয়া হবে।

কী করে করবেন রেজিস্ট্রেশন!

https://www.eshram.gov.in/ – এ গিয়ে সেখানে মোবাইল নম্বর, আধার নাম্বার, ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট এর সম্পূর্ণ তথ্য দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে।

সর্বপ্রথম ওই ওয়েবসাইটে লগ ইন করে সেখানে ‘Register on e-shram’ সেকশনে ক্লিক করতে হবে। সেখানে আধার নাম্বার, ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট এর ডিটেইলস, ফোন নাম্বার সমস্ত দিতে হবে পোর্টালে।

আবেদনকারী শ্রমিকের বয়স ১৬-৫৯ বছরের মধ্যে হতে হবে। এর থেকে বেশি বয়সের কোন ব্যাক্তির এই পোর্টালে নাম নথিভুক্ত করা হবে না।