কেন পালন করা হয় ২৬ জানুয়ারি? রইল কিছু অজানা তথ্য

২০২০ সালের ১৫ অগাস্ট  স্বাধীনতা দিবসের সময় ছিল করোনার প্রকোপ৷  ২০২১ এর ২৬ জানুয়ারিও একই অবস্থা৷ প্রজাতন্ত্র দিবসেও পড়েছে করোনার কোপ। এদিকে দেশনেতা  নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুর জন্মজয়ন্তীর পরপরই, ২৬ শে জানুয়ারি প্রজাতন্ত্র দিবসের দিন দেশের বিভিন্ন প্রান্তে  উড়তে দেখা যায় দেশবাসীর গর্বের তেরঙ্গা পতাকা। দেশাত্মবোধক গান, পতাকা উত্তোলন কুচকাওয়াজ দিয়ে  নানা অনুষ্ঠানের মাধ্যমে প্রতিবছর এই দিনটিতে পালিত হয় প্রজাতন্ত্র দিবস। কিন্ত কেন পালন করা হয়?  জেনে নেওয়া যাক এই দিনের  কিছু অজানা তথ্য।

১৯৫০ সালে  আম্বেদকর দেশের সংবিধান তৈরি করেন৷  সংবিধান কার্যকর করার জন্য সেই সময় বেছে নেওয়া হয় ২৬ জানুয়ারি দিনটিকে । তাই ২৬ জানুয়ারি দেশের প্রজাতন্ত্র দিবস নামে পরিচিত। প্রথমে ২৬ শে জানুয়ারি দিনটি  স্বাধীনতা দিবস হিসেবে পালন করা হত। ১৯২৯ সালের শেষে জওহরলাল নেহেরুর নেতৃত্বে ‘পূর্ণ স্বরাজের’ শপথ ঘোষণার পর ১৯৩০ সাল থেকে ২৬ জানুয়ারি স্বাধীনতা দিবস ঘোষণা করা হয়েছিল। কিন্তু পরবর্তী ২০০ বছরের ব্রিটিশ শাসন থেকে ১৯৪৭ সালের ১৫ই অগাস্ট স্বাধীনতা অর্জন করল  ভারত, তখন ১৫ অগাস্ট স্বাধীনতা দিবস হল।

ঔপনিবেশিক শাসনের শিকল ভেঙে ভারত যেদিন সত্যি স্বাধীনতার মুখ দেখল সেইদিন ছিল ১৫ই অগাস্ট। তাই বদল হয়েছিল ২৬শে জানুয়ারির গুরুত্ব। ১৯৫০ সালে এই দিনে কার্যকর হল ভারতীয় সংবিধান। তখন থেকেই ২৬ জানুয়ারি দেশে পালিত হল প্রজাতন্ত্র দিবস।

  1. নতুন অ্যাপ লঞ্চ করল কেন্দ্র সরকার, এবার থেকে হাতের মুঠোয় থাকবে বাজেটের সমস্ত খুঁটিনাটি বিষয়

করোনা আবহে  এবারের প্রজাতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজেও থাকছে একাধিক বিধিনিষেধ। যাত্রাপথের দৈর্ঘ্যও কমিয়ে ফেলা হয়েছে।  রাজপথে দর্শকের সংখ্যাও কম করা হয়েছে বলে কেন্দ্রীয় সূত্রে জানা যাচ্ছে৷