আপনি কী জানেন কেন বিরিয়ানির হাঁড়ি লাল কাপড়ে মোড়া থাকে, না জানলে…

ভোজনবিলাসী বাঙালির কাছে ভালো খাওয়া মানেই বিরিয়ানি। কম খরচে পেট ভর্তি করে খাবার খেতে গেলে সবার আগে মনে পড়ে যায় বিরিয়ানির নাম। ওয়াজেদ আলী শাহর হাত ধরে কলকাতায় প্রথম প্রবেশ করেছিল বিরিয়ানি। কিন্তু আজ সেই বিরিয়ানি বাঙালির অন্যতম ভালোবাসার জায়গা। লম্বা লম্বা চালের ভাত, সাথে মাংস আর আলু, এক কথায় যেন স্বর্গ। বিরিয়ানির গন্ধে যেন স্বর্গসুখ প্রাপ্তি হয় আমাদের। এই মনকাড়া বিরিয়ানির কথা বলতে গেলে আরো একটি কথা বলতে হয় সেটি হল, বিরিয়ানির পাত্রের কথা।

আপনি নিশ্চয়ই লক্ষ্য করে দেখবেন, বিরিয়ানীর দোকানের সামনে বড় বড় হাঁড়িতে বিরিয়ানি রান্না হয়। আপনি এও দেখে থাকবেন, প্রায় সব দোকানেই এই পাত্রের গায়ে জড়ানো থাকে একটি লাল কাপড়। কিন্তু কখনো কি খেয়াল করেছেন, শুধুমাত্র কেন লাল কাপড়ে মোড়া থাকে এই পাত্র? কেন অন্য কোন রঙের কাপড় দিয়ে মুড়িয়ে রাখা হয় না পাত্রগুলি?

ইতিহাস ঘাটলে জানতে পারবেন, সম্রাট হুমায়ুনের খাদ্য পরিবেশনে দরবারী রীতি অনুযায়ী, রুপোলী পাত্রের খাবার গুলির জন্য লাল কাপড় এবং কোন ধাতব পাত্রগুলিকে সাদা কাপড়ে ঢেকে ফেলার নিয়ম ছিল। এই রীতি পরবর্তী কালে মুঘল দরবারে অনুসরণ করা হয়। খাদ্য পরিবেশনের এই নীতি লখনৌর নবাবরা অনুসরণ করতেন। বংশানুক্রমিক এই রীতি এমন ভাবেই চলে এসেছে যে আজ সারা বিশ্বে একই রীতি অনুসরণ করা হয়।

আবার অনেকেই মনে করেন, কোন ঐতিহ্যের রীতি মেনে নয় বরং ক্রেতাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে রাখার জন্য বিরিয়ানি তৈরি করার পাত্রকে মুড়িয়ে রাখা হয় লাল কাপড়ে। লাল রং দূর থেকে মানুষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে তাই এই পদ্ধতি অবলম্বন করা হয় শুধুমাত্র ক্রেতাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্য।