রথ যাত্রার সময় রথ চলতে চলতে হঠাৎ থেমে যায় কেন! কী রয়েছে এর পেছনে আসল রহস্য, জানুন রথ সম্পর্কে একাধিক অজানা তথ্য

আষাঢ় মাস মানেই হিন্দু ধর্মের মানুষদের মনে একটা উত্তেজনা, কারণ এই মাসেই পুরির জগন্নাথ মন্দিরে মহা সমারহে রথ যাত্রা পালন হয়। সেখানে ধনী, দরিদ্র, নিচু জাতি, উচু জাতি কোন কিছুই ভেদাভেদ নেই, সকলে সেখানে জগন্নাথকে নিয়ে রাজপথে নামে। এই রথ যাত্রা বা জগন্নাথ ধাম নিয়ে অনেক অলৌকিক কাহিনী জড়িয়ে আছে, আজ কথা বলব আপনাদের রথের বিষয়ে, কেন রথ টানতে টানতে হঠাৎ থেমে যায়।

রথ যাত্রা একটি এমনি অনুষ্ঠান যেখানে কাতারে কাতারে মানুষ ভিড় করে শুধুমাত্র একটু রথের দড়ি টানার জন্য, জগন্নাথের যে তিনটি রথ আছে তিনটিতেই বিরাজ করে ৩৩ কোটি দেবতা। তাই সবাই চায় রথের দড়ি একবার হলেও টেনে পূর্ণ অর্জন করতে।

রথ তৈরী হয় ২০৬ টি কাঠ দিয়ে যেমন মানব দেহ তৈরী হয় ২০৬ টি হাড় দিয়ে। প্রতি বছর এই রথ নতুন করে তৈরী করতে হয়, জগন্নাথদেব এই রথে চেপে বলরাম ও সুভদ্রাকে নিয়ে সাতদিন এর জন্য যান তার মাসির বাড়ি এই রথ কে বলা হয় সোজা রথ, সাতদিন পর আবার একই নিয়মে জগন্নাথদেব ফিরে আসেন তার মাসির বাড়িতে। এই রথ যাত্রাকে বলে উল্টো রথ।

রথের দড়ি টানলে সবথেকে বেশি পূর্ন অর্জন করা হয় বলেই সবাই মনে করেন, কারণ কথিত আছে স্বয়ং বাসুকিনাগ রথের দড়ি হিসাবে নিজেকে নিবেদন করেছিলেন, তাই ভক্তরা ভিড় করে এই দড়ি টানার জন্য, তাতে বাসুকিনাগের আশীর্বাদ পাওয়া যায় বলেই ভক্তরা মনে করে। মাঝে মাঝে চলতে চলতে রথ থেমে যায়, কারণ জগন্নাথের ইচ্ছাশক্তি দিয়েই রথ চলে, অনেক মানুষের ভিড়ে জগন্নাথ দেব যখন রাধাভাবে বিভোর মহাপ্রভুকে দেখতে পান না, তখন মাঝে মাঝে রথ থেমে যায়। আজও রাধাভাবে বিভোর মহাপ্রভু রথে অচল জগন্নাথকে দেখে নৃত্য করতে করতে যায়। তাই মাঝে মাঝেই রথ থেমে যায় আবার চলতে শুরু করে।