ভবানীপুর ছেড়ে নন্দীগ্রাম থেকে কেনো প্রার্থী হলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ? বিরোধীদের দিলেন কড়া জবাব

গত ৫ মার্চ রাজ্যের বিধানসভা ভোটে লড়াই করার জন্য তৃণমূলের তরফ থেকে প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করা হয়েছে। তৃণমূল ভবনে এক সাংবাদিক বৈঠকের মাধ্যমে তৃণমূল সুপ্রিমো শ্রীমতি মমতা ব্যানার্জি (Mamata Banerjee) ২৯১ টি আসনের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করেছেন। এই বিধানসভা ভোটের হটস্পট হল নন্দীগ্রাম। এই নন্দীগ্রামে তৃণমূলের হয়ে ভোট মঞ্চে লড়াই করবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি (Mamata Banerjee) এবং তার বিপরীতে থাকবেন বিজেপি দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী (Suvendu Adhikari)। মুখ্যমন্ত্রী কলকাতা ছেড়ে কেন নন্দীগ্রামে প্রার্থী হতে গেলেন? সেই প্রশ্নে শবর হয়েছে গোটা গেরুয়া শিবির। এবার এই প্রশ্নের উত্তর দিলেন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী নিজেই।

 

আর কিছুদিন বাদেই রাজ্যে শুরু হতে চলেছে বিধানসভা ভোট। ভোট লড়াইয়ে নিজেদের জমিকে শক্ত করার জন্য পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন রাজনৈতিক দল নিজেদের মতো করে প্রচার শুরু করে দিয়েছে। করা হচ্ছে বিভিন্ন রাজনৈতিক সভাও। ভোটের লড়াইয়ে কেউ এক ইঞ্চি জমি ছাড়তেও রাজি নয়। এবারে বিধানসভা ভোটে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কলকাতার কোনো আসোনে না প্রার্থী হয়ে তিনি দাঁড়িয়েছেন নন্দীগ্রামে।

মুখ্যমন্ত্রী নন্দীগ্রামে প্রার্থী হওয়া নিয়ে বিজেপি মহল থেকে বলা হয়েছে মুখ্যমন্ত্রী নাকি ভয় পেয়ে সিটের খোঁজ করার জন্য ভবানীপুর থেকে নন্দীগ্রামের হাই জাম্প করে পৌঁছেছেন। এছাড়াও বিজেপির প্রচার করছিলেন যে মমতা ব্যানার্জি (Mamata Banerjee) বুঝতে পেরেছিলেন ভবানীপুরের আসনটি তাঁর পক্ষে নিরাপদ নয় তাই তিনি ফিরে গিয়েছেন তাঁর আন্দোলনের পীঠস্থান নন্দীগ্রামে। এই ব্যাপারে মুখ্যমন্ত্রী এতদিন চুপ করে ছিলেন কিন্তু এবার শোনা গেল মুখ খুলতে।

মুখ্যমন্ত্রী বলেন তিনি নন্দীগ্রামে প্রার্থী হয়েছেন শুধুমাত্র সেখানকার মানুষের ভালোবাসার টানে। কোনো সিটের খোঁজ তিনি করতে যাচ্ছেন না। এই প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী মঙ্গলবার ৯ মার্চ নন্দীগ্রামের বটতলা হেলিপ্যাড গ্রাউন্ডে কর্মিসভায় বক্তৃতা দিতে গিয়ে বলেছেন, “আমার তো ঘরের কেন্দ্র ছিল ভবানীপুর। আমাকে তো কিছুই করতে হত না। আমি তো ওখানেই থাকি। কিন্তু, আমি যেদিন শেষ এসেছিলাম, তখন নন্দীগ্রাম আসনটা খালি ছিল। তখন কিন্তু এখানে কোনও বিধায়ক ছিল না। তাই আমি তখন দেখতে চেয়েছিলাম এখানকার মানুষ আমাকে চায় কিনা। তেখালির সভা থেকে আপনাদের উদ্দেশে প্রশ্ন করেছিলাম, আমি যদি এখানে প্রার্থী হই কেমন হয়? সেদিন মানুষের ভালবাসা আমাকে টেনে এনেছে। আপনাদের সেই ভালবাসা, সেই সাহস, সেই উদ্দীপনা, মা বোনেদের উৎসাহ আমাকে এখানে প্রার্থী হতে উৎসাহ দিয়েছেন। আমার দু’চোখে শুধু নন্দীগ্রাম।”

নন্দীগ্রামে মমতা ব্যানার্জির (Mamata Banerjee) তৃণমূলের প্রার্থী হওয়ার কারণ প্রসঙ্গে বলেন, ”গ্রামের দিকে আমার একটা টান বরাবরই আছে। আমার এবার মাথায় ছিল, আমি হয় সিঙ্গুর, নাহয় নন্দীগ্রামে দাঁড়াব। কারণ এই দুটো হল আন্দোলনের পীঠস্থান।” মঙ্গলবার আরও একবার তৃণমূল কর্মীদের কাছে প্রার্থী হওয়ার অনুমতি চেয়ে নেন। বলেন, “যদি আপনারা মনে করেন আমার দাঁড়ানো উচিত না, তাহলে কাল আমি মনোনয়ন দেব না। যদি আপনারা মনে করেন, আমি আপনাদের ঘরের মেয়ে, তাহলেই আমি মনোনয়ন দেব। আপনারা বলুন কাল মনোনয়ন দেব তো?” দর্শক মহল থেকেও বিপুল পরিমাণ সাড়া মিলেছে মুখ্যমন্ত্রীর এই ডাকে।