ক্ষমতায় এলে কে করবে রাজ্যের বেকারত্ব সমস্যার সমাধান! বেরিয়ে এল জনমত সমীক্ষার ফলাফল

বর্তমান যুগে ভারতবর্ষ তথা পশ্চিমবঙ্গে বেকার সমস্যা এক বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। ছেলেমেয়েরা ঠিকভাবে পড়াশোনা করেও চাকরি পাচ্ছে না। সরকারি চাকরি তো দূরের কথা ঠিকমতো কোম্পানির চাকরি হচ্ছে না এখনকার পড়ুয়াদের। কোন রাজনৈতিক দল ক্ষমতায় এলে বেকার সমস্যা দূর করতে পারবে সেই বিষয়ে সিএনএক্স সমীক্ষা চালায়। চলুন এবার দেখে নেয়া যাক সিএনএক্সের দ্বিতীয় সমীক্ষা কী বলছে?

পশ্চিমবঙ্গে আসন্ন বিধানসভা ভোটের ঘন্টা বেজে গেছে। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলো প্রচার চালানো শুরু করেছে। একে অপরকে কটাক্ষ করতে ছাড়ছে না। কোন দল কত আসন পেতে পারে, আবার ক্ষমতায় আসলে কোন দল বেকার সমস্যা সমাধান করতে পারবে এই বিষয়ে সিএনএক্সের দ্বিতীয় সমীক্ষা একটি রিপোর্ট পেশ করেছে।

১৫ থেকে ২৩শে ফেব্রুয়ারি সিএনএক্স সমীক্ষা চালিয়েছে। তবে যখন সমীক্ষাটি চালানো হয়েছে তখন তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা প্রকাশিত হয়নি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ব্রিগেড সভা হয়নি, মিঠুন চক্রবর্তীও বিজেপি শিবিরে পা রাখেননি। তাই ভোটের পর সিংহাসনে কে বসবে সেই ব্যাপারে নিশ্চিত ভাবে কিছু না বলা গেলেও মানুষের কাছ থেকে উত্তর প্রত্যুত্তরের মাধ্যমে একটা ধারণা করা যায়।

এখন সমাজের সবথেকে বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে বেকার সমস্যা কে ক্ষমতায় এলে এই বেকার সমস্যা দূর করবে সেই ব্যাপারে এই সমীক্ষা থেকে জানা যায়। ৩৮ শতাংশ মানুষ মনে করছেন যে রাজ্য বিজেপি সরকার এলে বেকার সমস্যা দূরীভূত হবে। অন্যদিকে ৪৪ শতাংশ মানুষ মনে করছেন যে সিংহাসনে আবার তৃণমূল সরকার বসলেই বেকার সমস্যা মেটাতে পারবে। আর মাত্র ৫ শতাংশ মানুষ মনে করছেন এই দুই দলই বেকার সমস্যা দূরীকরণ করার সম্ভাবনা রয়েছে। ২ শতাংশ মানুষের মতে, কোনও দলই বেকার সমস্যার সমাধান করতে পারবে না। ১১ শতাংশ মানুষ জানিয়েছেন, তাঁরা এ বিষয়ে কিছু বলতে পারবেন না।

মমতার সরকার কোন ক্ষেত্রে বেশি অসফল? সেই প্রশ্নের উত্তরে ৩৩ শতাংশ মানুষ জানিয়েছেন, বেকারত্ব বৃদ্ধিই তৃণমূলের শাসনকালে সবচেয়ে বড় ব্যর্থতা। আর ২৩ শতাংশ মানুষ মনে করেন মোদি সরকারের সবথেকে বড় ব্যর্থতা হল বেকারত্ব সমস্যা।