শুধুমাত্র লকডাউন যথেষ্ট নয় মহামারী করোনাকে রুখতে, বরং চালাতে হবে পাল্টা হামলা- হু প্রধান..

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা হু (World Health Organization) এর প্রধান ঘেব্রেসাস বিশ্বজুড়ে মরন ভাইরাস COVID-19 দমনে দিলেন বড় তথ্য।এই মুহূর্তে গোটা বিশ্বে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়ে গেছে 4 লক্ষ 71 হাজার, আর এই ভাইরাসের জেরে আপাতত বিশ্বজুড়ে মৃত্যু হয়েছে 21 হাজার লোকের। শুধু তাই নয় এই বিশ্বব্যাপী মহামারী হাত থেকে রেহায় পায়নি বিশ্বের উন্নয়নশীল দেশগুলোও।এই মুহূর্তে এই ভাইরাসের জেরে চীন,স্পেন, ইতালির পরিস্থিতি আরও শোচনীয় হয়ে পড়েছে। যেখানে ইটালির মতো উন্নতিশীল দেশে এই ভাইরাসের জেরে মৃত্যু হয়েছে 7 হাজারেরও বেশি মানুষের আর আমেরিকায় মৃত্যু হয়েছে 1 হাজার মানুষের।

অন্যদিকে যত দিন যাচ্ছে তত করোনাভাইরাস এর জেরে ভারতে সংক্রমণের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে এখনো পর্যন্ত ভারতে করোনো ভাইরাসের জেরে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে 681 জন,অন্যদিকে এই ভাইরাসের জেরে ভারতে মৃত্যু হয়েছে 13 জনের। তাই দেশজুড়ে এই করোনার সংক্রমণ রুখতে লকডাউনের ঘোষণা করা হয়েছে আগামী 21 দিনের জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির তরফ থেকে। আর আজ সেই লকডাউনের দ্বিতীয় দিন।

তবে এবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা হু এর তরফ থেকে যে তথ্যটি বেরিয়ে আসছে সেখানে জানানো হয়েছে এই করোনা ভাইরাসের হাত থেকে বাঁচতে লকডাউন করা যথেষ্ট হবে না।বরং এই করোনা মোকাবেলায় পাল্টা হামলা চালাতে হবে তবে সেটা কীভাবে চালানো যাবে, তার ব্যাখ্যায় স্পষ্ট করে দিলেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেড্রস আধানম ঘেব্রেসাস।তিনি জানান বিশ্বের প্রায় 190 টি দেশেই করোনা আক্রান্ত রয়েছে আর যেসব দেশে এই ভাইরাস টি ব্যাপক মহামারি আকার ধারণ করেছে কিংবা আশঙ্কা রয়েছে মহামারী আকার ধারণ করার, তারা সকলেই কিন্তু এই নকডাউনের পথে হেঁটেছে ভারত ও তার ব্যতিক্রম নয়।

কিন্তু এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করতে যে লকডাউন যথেষ্ট নয় সে কথা জানিয়ে দিলেন হু এর প্রধান। তিনি জানান এক্ষেত্রে কিছুটা হলেও করানা ভাইরাসকে ছড়িয়ে পড়ার হাত থেকে রখা সম্ভব হবে, তবে পুরোপুরি ভাবে খতম করা সম্ভব হবে না এতে।তাই এক্ষেত্রে করোনাকে পুরোপুরি খতম করতে হলে প্রয়োজন আছে তার ওপর পাল্টা আক্রমণ চালানোর।ওই দিন তিনি জানান লকডাউন এর পথে হেঁটে আমরা এই ভাইরাসের প্রকোপ থেকে বাঁচার জন্য বিকল্প পথ খুঁজতে পেরেছি । আর এবার এই সময়কে কাজে লাগানো দরকার আছে প্রয়োজনে রয়েছে করোনাকে শনাক্ত করে আইসোলেশন পরীক্ষা এবং চিকিৎসার। করোনা ভাইরাসের প্রকোপ কে রুখতে কিন্তু এগুলিই এখন আদর্শ পথ।

Related Articles

Close