প্রধানমন্ত্রী হিসাবে শক্তিশালী কে? বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী নাকি প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী? সংবাদ মাধ্যমের অকপট অভিনেতা অজয় দেবগন

পাড়ার ঠেক বা চায়ের দোকান রাজনৈতিক আলোচনা এখন সর্বত্র। সব জায়গায় এই প্রাসঙ্গিক আলোচনা সবচেয়ে টপে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যকারিতা দেখেই দেশ জুড়ে সর্বত্র মানুষ প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিত্বের বিচার করেন। বর্তমানে সবথেকে বেশি বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সাথে তুলনা করা হয়ে থাকে প্রাক্তন মহিলা প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর সাথে। এই বিষয় নিয়ে আমজনতা শুধু নন বড় বড় অভিনেতা অভিনেত্রীরাও তাদের নিজেদের সোশ্যাল মিডিয়ায় এই বিষয় নিয়ে আলোচনা করে থাকেন।

ইন্দিরা গান্ধীর প্রশংসা করেন অনেকেই বিশেষ করে কংগ্রেস সমর্থকেরা তো ভীষণভাবেই প্রশংসা করে থাকেন। অনেকেই আবার আয়রন লেডি বলে সম্বোধন করে থাকেন আমাদের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীকে। এদিকে বিজেপি সমর্থক মানুষেরা নরেন্দ্র মোদীর প্রশংসায় মুখর। এই নিয়ে দুই দলের মধ্যে বাক-বিতন্ডা লেগেই আছে। এই বিষয় নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে পড়েছেন অভিনেতা অজয় দেবগন।

অভিনেতা অজয় দেবগনকে চর্চার কেন্দ্রবিন্দুতে থাকতে খুবই কম দেখা যায়। বলতে গেলে অন্যান্য অভিনেতার মত তাকে সোশ্যাল মিডিয়ার পোস্টে তাকে নিয়ে লেখালিখি খুব কমই হয়। তবে এবারে অজয় দেবগনের একটি সংবাদ মাধ্যমের সাক্ষাৎকার বেশ ভালোই ভাইরাল হয়েছে।

সম্প্রতি তিনি একটি সংবাদ মাধ্যমের সাক্ষাৎকারে বেশ কিছু কথা বলেছেন যা মন কেড়েছে সাধারণ মানুষের। সংবাদ মাধ্যমের সঞ্চালক চিত্রা ত্রিপাঠি তাকে একটি গুরু গম্ভীর প্রশ্নের মুখে ফেলেন, তিনি জিজ্ঞেস করেছিলেন “ইন্দিরা গান্ধীর আমলে বাংলাদেশ স্বাধীন করার ইতিহাস আজও দেশবাসী স্মরণ করে। অন্যদিকে প্রধানমন্ত্রী মোদীর আমলে উরি এয়ার স্ট্রাইক দেশবাসীকে নতুন উৎসাহ এনে দিয়েছে। দুই প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে আপনি কাকে বেশি শক্তিশালী মনে করেন”?

এই বিষয় নিয়ে অজয় দেবগন বলেছেন, দেখুন আমি মনে করি এক একজন তার একেকটা ব্যক্তিত্ব নিয়ে চলেন। কখনোই কোনোদিন এই বিষয় নিয়ে কারো সাথে তুলনা করা উচিত নয়। প্রধানমন্ত্রী হিসাবে একেবারেই দু’জন দুজনের থেকে ভিন্ন। দুই প্রধানমন্ত্রীর তুলনা করা খুবই অন্যায়। দুই দল তাদের দুই প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে একে অপরকে ছোট করে তুলনা টেনে আনেন এই বিষয়টি অজয় দেবগনের অপছন্দ তিনি স্পষ্ট জানিয়েছেন।