কোথায় কোথায় ব্যবহৃত হচ্ছে পেট্রোল-ডিজেলের বিপুল পরিমাণ ট্যাক্স, জানালেন স্বয়ং কেন্দ্রীয় মন্ত্রী

বর্তমানে পেট্রোল ও ডিজেলের দাম আকাশছোঁয়া। সাধারণ মানুষ বেশ অস্বস্তিতে রয়েছে গাড়ি বের করতে। একাধিক বিজেপি বিরোধী রাজ্য পেট্রোল-ডিজেলের দাম বৃদ্ধি নিয়ে সরব। এবার সেই পেট্রোল-ডিজেলের যে কর আদায় করা হয় তা কোন কোন খাতে ব্যয় করা হয় সে বিষয়ে সম্পূর্ণ ব্যাখ্যা দিলেন কেন্দ্রীয় সড়ক পরিবহনমন্ত্রী নীতিন গড়করি। লোকসভার বাদল অধিবেশনে বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি জানান পেট্রোল-ডিজেলের যে কর পাওয়া যায়, সেগুলি অবকাঠামোগত উন্নয়নে এবং অন্যান্য উন্নয়নমূলক কাজে ব্যবহার করা হয়।

দেশে পেট্রোল-ডিজেলের লাগাতার মূল্যবৃদ্ধির জেরে একাধিক রাজ্যে বিক্ষোভ ফেটে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। পেট্রোল এর আগেও ১০০ টাকা পেরিয়ে গেছে অন্যদিকে ডিজেল ও ১০০ টাকা ছুঁই ছুঁই। এদিন সড়ক পরিবহন মন্ত্রী জানান ‘মোট পরিবহনের পেট্রোল-ডিজেলের দাম বৃদ্ধির প্রভাব পড়ে প্রায় ৩৪ শতাংশ যেখানে মূলধন বেতন বীমা পারমিট টেক্স রক্ষণাবেক্ষণ জ্বালানি টোল ট্যাক্স এবং যানবাহন কেনার ক্ষেত্রে এই বিপুল অর্থ ব্যয় করা হয়।

একদিকে করোনা মহামারী ভারতে প্রবেশ করার পর কর্মহীন হয়ে পড়েছে কোটি কোটি মানুষ। অন্যদিকে দিনের পর দিন ক্রমাগত বেড়েই চলেছে পেট্রোল-ডিজেলের দাম। এখন সাধারণ মানুষের দিনে দুমুঠো ভাত খাবার সামর্থ্য নেই সেখানে এই ব্যাপক মূল্যবৃদ্ধি দিয়ে পেট্রোল ডিজেল কেনা এক রকম অসম্ভব। আবার কাজের তাগিদে বাইরে যাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ নেই তাদের।

সুতরাং মধ্যবিত্ত মানুষের রোজগারের একমাত্র মাধ্যম দু চাকা থেকে চার চাকা গাড়ি। যার সাহায্যে যাতায়াত বা ব্যবসা করে বেচেঁ থাকতে হবে সাধারণ মানুষ কে। পেট্রোল- ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধির জেরে শাকসবজি থেকে মাছ সবকিছুরই দাম আকাশছোঁয়া। কপালে হাত ক্রেতাদেরও।