কী বলছে জনমত সমীক্ষা? আবারও কে গড়বে উত্তরপ্রদেশে সরকার, বিস্তারিত জানতে

হাতে রয়েছে আর মাত্র সাত মাস। তার পরেই আসতে চলেছে উত্তরপ্রদেশে বিধানসভা নির্বাচনের পালা। এখন থেকেই রাজনৈতিক মহলে শুরু হয়ে গেছে লোকসভা নির্বাচন নিয়ে জল্পনা কল্পনা। দেশের সবচেয়ে বড় রাজ্যের সিংহাসন জয়ের লড়াইয়ে শামিল হয়েছে ৪ টি ক্ষমতাশালী রাজনৈতিক দল যথা যোগী আদিত্যনাথের ‘বিজেপি’, অখিলেশ যাদবের ‘সমাজবাদী পার্টি’, মায়াবতীর ‘বহুজন সমাজবাদী পার্টি’ এবং প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর ‘কংগ্রেস’।

গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে যোগী আদিত্যনাথের দলকে সমানে সমানে টক্কর দিয়েছে অখিলেশ যাদবের দল। হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হলেও বিজেপির প্রশাসনিক ক্ষমতা এবং অর্থের কাছে হার মানতে হয়েছে অখিলেশ যাদবের দলকে। একদিকে দলিত ও মুসলিম সম্প্রদায়ের লোকেদের মাঝে অত্যন্ত জনপ্রিয় হয়ে রয়েছেন মায়াবতী এবং অপরদিকে বরাবর লড়াইয়ের প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন কংগ্রেসের পক্ষ থেকে প্রিয়াঙ্কা গান্ধী।

‘TIMES NOW C VOTER’ এর সমীক্ষা অনুসারে আজও উত্তরপ্রদেশের ৪৩.১ শতাংশের কাছাকাছি মানুষ বিজেপিকেই চাইছেন। ২৯.৬ শতাংশ মানুষ ক্ষমতায় চাইছেন সমাজবাদী পার্টিকে। ১০.১ শতাংশের কাছাকাছি মানুষ ভরসা রেখেছেন বহুজন সমাজবাদী পার্টির উপর। বাদবাকি ৮.১ শতাংশ মানুষ চাইছেন কংগ্রেসকে। রাজনৈতিক দলগুলির পাশাপাশি ভিন্ন দলের নেতাদের মধ্যেও শুরু হয়ে গেছে বাক্য যুদ্ধ। একে অপরকে এক ইঞ্চিও জমি ছাড়তে নারাজ।

Advertisements

মুখ্যমন্ত্রী পদের জন্য সমীক্ষায় দেখা গেছে রাজ্যের ৪২.২ শতাংশ মানুষ চাইছেন যোগী আদিত্যনাথকে। ৩২.২ শতাংশ মানুষ ক্ষমতায় চাইছেন অখিলেশ যাদবকে। রাজ্যের ১৭ শতাংশ মানুষ আশা রেখেছেন মায়াবতীর রাজনৈতিক দলের উপর। সবচেয়ে কম ২.৯ শতাংশ মানুষ চাইছেন প্রিয়াঙ্কার দলকে। এবার কোন দল বসতে চলেছে রাজ্যের সিংহাসনে তা ঠিক করে দেবে উত্তরপ্রদেশের জনতা।

Advertisements