দেশের বাণিজ্যে কী নতুন মোড়! তবে কী ঘুরে দাড়াচ্ছে টাটা গ্রুপ, জেনে নিন বিস্তারিত

আবারও সাফল্যের পথে এগোচ্ছে টাটা গোষ্ঠী। গাড়ির বাজারে শেয়ারে দ্বিগুণ দাম বাড়িয়ে মূল্যবৃদ্ধির সুফল ভোগ করেছে টাটা মোটর্স ও টাটা স্টিল। এই দুই গোষ্ঠী তাদের গতিচ্ছন্দ অক্ষুন্ন রেখেছে। এই বণিক গোষ্ঠীর দেনা অনেক থাকলেও ভার কিছুটা কমেছে, বাজারি পুজিঁর পরিমানও অনেকটাই বেড়েছে। সাম্প্রতিক সময়ে টাটাদের চার, পাঁচটি বড় ক্ষেত্র কে বেছে নিয়ে তাদের অভিমুখ পর্যালোচনা করলে দেখা যায় প্রতিরক্ষা ও বিমান নির্মাণ এর ক্ষেত্রে একাধিক সম্ভাবনা আছে।

এর মধ্যে বর্তমানে মালবাহী বিমান, যুদ্ধ বিমান, হেলিকপ্টার, অস্ত্রবাহি গাড়ি ইত্যাদি নির্মাণ শিল্পের সাথে যুক্ত রয়েছে। গোষ্ঠীর ‘সুপার অ্যাপ’ ডিজিটাল ব্যাবসা বাণিজ্য অভিমুখী। এর মধ্যে আছে পর্যটন ও আর্থিক পরিষেবা। অধিগ্রহণ এই বিশাল লাভের বড় ভূমিকায়। এই গোষ্ঠীর ইলেকট্রনিক, হ্যান্ডসেট তৈরি, বিদ্যুৎ চালিত যান নির্মানে অগ্রনী ভূমিকা নিচ্ছে। বার এয়ার ইন্ডিয়া অধিগ্রহণ করলে তা এক মিলিত বিমান পরিবহন সংস্থার দিকে এগোবে।

সব দিক দিয়ে বিচার করলে বোঝা যায় টাটা গোষ্ঠীর সঙ্গে পা মেলাতে চলেছে বিশ্বের তাবড় বাণিজ্যিক ক্ষেত্র যেমন স্যামসাং, টেসলা, ইন্টেল, আ্যমাজন, ওয়ালমার্ট ইত্যাদি। এরা সবাই টাটার চেয়ে অনেক ক্ষমতাশালী। টাটা গোষ্ঠী সাবেকী চিন্তাধারার এক কেন্দ্রতেই মনযোগী সেক্ষেত্রে এইসব সংস্থার সাথে কাধেঁ কাধ মিলিয়ে লড়তে গেলে আলাদা মানসিক বল ও আর্থিক ক্ষমতা থাকা দরকার। পুঁজি নিবিড় বাণিজ্যে ঝুঁকি আছে।

অতীতে টাটা গোষ্ঠী টাইটান বা টাটা এলক্সসির মতো ডিজাইন বিপণির ক্ষেত্রে অনেক লাভ করলেও সাম্প্রতিককালে বাণিজ্যে চুক্তি তেমন ভাবে সাফল্য দেয়নি। বিটেনের গাড়ি নির্মান কারখানা, ইউরোপের ইস্পাত কারখানা, কিছু হোটেল ব্যবসা সব কিছুরই পরিনতি আশানুরূপ নয়। সেক্ষেত্রে টেলিকম ব্যাবসা অনেকটাই লাভের মুখ দেখিয়েছে। টাটারা বিমান পরিবহন এর ক্ষেত্রে ছোট মাপের খেলোয়াড়।

এমতাবস্থায় পরিস্থিতিতে টাটাদের সাফল্য আসতে পারে, হয়ত দেশের অন্ত বণিজ্য অথবা বিদেশী অংশীদারদের থেকে পণ্য কিনতে সাহায্য করতে পারে প্রতিরক্ষা বা সরকার। তবে সে দিকেও আশা খুব একটা নেই। বিশ্বমানের পন্য সরবরাহের ক্ষেত্রে ফাকা নেই। সে ক্ষেত্রে সরকার কে পাশে দাঁড়াতে হতে পারে। সব সময় সব ব্যাবসা বিরাট সুযোগ সম্পন্ন নাও হতে পারে। সেক্ষেত্রে বাণিজ্যিক ক্ষেত্রটি সামনে আনতে হবে তবেই দীর্ঘমেয়াদী সুবিধা পাওয়া যাবে।