কোভিড পরিস্থিতিতে অন্যান্য রাজ্যের তুলনায় বাংলার পুলিশ ভালো কাজ করেছে, তাই আগামী 1 সেপ্টেম্বর দিনটিকে পুলিশ দিবস হিসেবে পালনের কথা মুখ্যমন্ত্রীর

গতকাল সোমবার দিন নবান্নের বৈঠক থেকে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পশ্চিমবঙ্গের পুলিশদের “ওয়ান অফ দ্যা বেস্ট” বলে সম্বোধন করলেন এবং তাঁর পাশাপাশি ব্রিটেনের স্কটল্যান্ড ইয়ার্ডস এর সঙ্গে তুলনা করলেন কলকাতা পুলিশদের। তিনি জানালেন এরকম এক মহামারী করোনা বিরুদ্ধে যখন গোটা দেশ লড়ছে তখন রাজ্যজুড়ে পরিস্থিতির মোকাবেলা করতে রাস্তায় লড়াই করছেন পুলিশকর্মীরা। আর তাদের এই সাহসিকতা কে সম্মান জানাতে আগামী 1 সেপ্টেম্বর দিনটিতে পুলিশ দিবস হিসেবে পালন করার ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

 

তিনি জানান যখন এই মুহূর্তে সকলে দরজা বন্ধ করে করোনা মোকাবিলায় করছেন তখন রাস্তায় নেমে পরিস্থিতি সামাল দিচ্ছেন পুলিশকর্মীরা, শুধু তাই নয় অতিরিক্ত কাজ করে চলেছেন তাঁরা অনবরত। এই কোভিড পরিস্থিতিতে তারা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সামলাচ্ছেন ট্রাফিকের একটা বড় অংশ। অনেককেই ঘেষাঘেষি করে থাকতে হচ্ছে ব্যারাকে। ইতিমধ্যে বহু পুলিশকর্মী করোনা দ্বারা আক্রান্ত হয়েছেন রাজ্যেও মারা গিয়েছেন 18 জন। তারপরও তারা এই ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে রাজ্যের মানুষদের জন্য অবিরাম লড়াই করে যাচ্ছেন।

তাই এই দিন মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণা করেন পুলিশের করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে নতুন ব্যারাক তৈরি করা হবে দূরত্ব বিধি মেনে। মুখ্যমন্ত্রী বক্তব্য বাংলাতে বসবাস করছেন প্রায় 10 কোটি মানুষ আর এই মুহূর্তে এই লকডাউনে কেউ সঠিকভাবে মাস্ক পড়ছেন কিনা কিংবা লকডাউন ঠিক মতো পালন করছেন কিনা এই বিষয়ে যাবতীয় দেখভাল করছেন পুলিশকর্মীরা।তার পাশাপাশি পুলিশ কর্মীরাই কনটেইনমেন্ট জোনে পৌঁছে দিচ্ছেন খাবার কিংবা ওষুধপত্র। দেশের আইন শৃঙ্খলা রক্ষা করার পাশাপাশি পুলিসকর্মীরা পালন করছেন মানবিক ও সামাজিক কাজ। আর এতকিছু করার পরও পুলিশদেরকেই কাঠগড়ায় তোলা হচ্ছে এটা ঠিক নয়।

এত বড় রাজ্যে দু একটি জায়গায় বেশ কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটছে যা খুবই দুঃখিত, তবে সেগুলো বাদ দিলে এই মুহূর্তে পুলিশের অবদান অপরিসীম। সেই প্রসঙ্গের কথা তুলে ধরেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং জানান যারা বাংলার পুলিশের বদনাম করছেন তারা যেন এই মুহূর্তে উত্তরপ্রদেশ, গুজরাট কিংবা বিহারের মতো রাজ্যের পুলিশি ব্যবস্থার দিকে চোখ রাখে তাহলে বুঝতে পারবে বাংলার পুলিশ তাদের তুলনায় অনেক গুন ভালো কাজ করছে। এর পাশাপাশি এদিন মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেন যে এবার থেকে রাজ্যে মহিলা পুলিশের পদোন্নতির সুযোগ বাড়ানো হবে এবং পুরুষ পুলিশদের পাশাপাশি মহিলা পুলিশদের ও সমান অধিকার দেওয়া হবে। অর্থাৎ প্রমোশন এর ক্ষেত্রে শুধু কাজ বিচার্য করা হবে লিঙ্গ নয়, এবং পুরুষ ও মহিলাদের জন্য পুলিশের অভিন্ন ক্যাডার তালিকা তৈরি করা হবে।