মহিলাদের ভোটেই বাজিমাত তৃণমূলের, বাংলার নির্বাচনে চমকপ্রদ তথ্য কমিশনের

২০২১ বিধানসভা ভোটের সময় শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের মূল স্লোগান ছিল ‘বাংলা নিজের মেয়েকে চায়’। সেইসঙ্গে দুয়ারে সরকার, পাড়ায় পাড়ায় সমাধান, স্বাস্থ্য সাথী কার্ড ও মাসে ৫০০ টাকা করে অনুদান এর মত নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল তৃণমূল কংগ্রেস। মূলত তাদের টার্গেট ছিল মহিলা ভোটার। সেই পরিকল্পনা যে অনেকাংশেই সফল তার প্রমাণ মিলেছে কমিশনের রিপোর্টে।

বিধানসভা নির্বাচনে কমিশনের রিপোর্ট সম্প্রতি সামনে এসেছে। বাংলায় মহিলা ও পুরুষদের ভোটের হার দেখে স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে মূলত মহিলা ভোটারের ওপর ভর দিয়েই তৃতীয়বারের জন্য সরকার গঠন করেছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল কংগ্রেস। বাংলা বিধানসভা ভোটে ৮১.৭০ শতাংশ মহিলা ভোট দিয়েছেন। পুরুষের ক্ষেত্রে সেই সংখ্যা ৮১.৪ শতাংশ। অর্থাৎ শতাংশের বিচারে পুরুষদের থেকে বেশ কিছুটা বেশি ভোট দিয়েছে মহিলারাই। পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচনে যায় এক বিরল ঘটনা। তবে মোট ভোটার বেশি থাকায় ভোটের নিরিখে মহিলাদের থেকে এগিয়ে ছিল পুরুষেরা।

এবারের বিধানসভা নির্বাচনে প্রায় ৩.৫কোটি মহিলা ভোটারের মধ্যে ভোট দিয়েছেন প্রায় ২.৯কোটি। অন্যদিকে ৩ কোটি ৭০ লক্ষ পুরুষ ভোটারের মধ্যে ভোট দিয়েছেন ৩ কোটি। অর্থাৎ মোট ভোটের বিচারে পুরুষ এবং মহিলার সংখ্যা প্রায় একই। তবে শুধু ভোটের নিরিখে নয় ভোটের সাফল্যের নিরিখেও পুরুষ প্রার্থীদের টেক্কা দিয়েছেন মহিলারা। পুরুষ প্রার্থীদের মধ্যে সাফল্যের হার যেখানে ১৩.৪ শতাংশ সেখানে মহিলাদের সাফল্যের হার ১৬.৭ শতাংশ।

রাজনৈতিক মহলের দাবি ২০২১ এর বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূলের মূল নিশানা ছিল বিজেপি। ধর্ম উন্নয়ন বাঙালি বহিরাগত ইস্যু ফ্যাক্টর হয়ে দাঁড়ায় বিধানসভা নির্বাচনে। তেমনি মহিলা ভোটাররাও ছিল একটি গুরুত্বপূর্ণ ফ্যাক্টর। সেই সময় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুখে বাংলা তার নিজের মেয়েকে চায় স্লোগান বাঙালির মা-বোনদের মনে দাগ কাটতে পেরেছিলেন তিনি।

তাছাড়াও 18 বছর বয়সের পর কন্যাশ্রী, রূপশ্রী ও মাসিক অর্থপ্রদানের প্রতিশ্রুতি শাসক দলকে এনে দিয়েছে এক বিরাট সাফল্য। মহিলাদের কথা মাথায় রেখে এবারের নির্বাচনে বেশকিছু মহিলা কেন্দ্রিক প্রকল্প সামনে এনে ছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যার ফল ২১৩ টি সিটের এই সাফল্য ।