বেরিয়ে এলো চাঞ্চল্যকর তথ্য, ভুয়ো পরিচয় পত্র নিয়ে রাজ্য থেকে গ্রেফতার হলো এক বাংলাদেশি..

অবৈধভাবে প্রবেশ রুখতে বহুদিন ধরে কেন্দ্রীয় সরকার চেষ্টা করে আসছে। এবার কোনভাবেই যাতে পরিচয় পত্র নকল করে প্রবেশ করতে না পারে তার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার।সীমান্তের মধ্য দিয়ে ভুয়া পরিচয় পত্র বানিয়ে প্রবেশ করে যেত অনুপ্রবেশকারীরা। যদিও এটি বন্ধ করতে কেন্দ্রীয় সরকার একাধিক পদক্ষেপ নিয়েছে যেমন নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন এবং জাতীয় নাগরিক পঞ্জী । যদিও এই আইন নিয়ে গোটা দেশে লাগাতার আন্দোলন চলছে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে।

ঠিক এমনই একটি সময়ে ধানবাদ স্টেশন থেকে ভুয়া আধার কার্ড এবং ভুয়া ভোটার কার্ড নিয়ে এক বাংলাদেশীকে ধরে ফেলল পুলিশ। এক্ষেত্রে নিরাপত্তা যে প্রশ্নের মুখে এসে দাঁড়িয়েছে তা বলা বাহুল্য।শনিবার বিকেলে ধানবাদ স্টেশন থেকে এই ভুয়া পরিচয় পত্র নিয়ে বাংলাদেশি ব্যক্তিকে গ্রেফতার করল পুলিশ। খবর পাওয়া গেছে যে স্টেশনে টিকিট চেক করার সময় বিনা টিকিটে ভ্রমণ করার জন্য ধরা পড়ে ওই বাংলাদেশি।

তারপর ওর কাছ থেকে নাম ঠিকানা জানতে চাওয়ায় তিনি বলেন পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদের বাসিন্দা। কিন্তু তার কাছ থেকে বাংলাদেশী পাসপোর্ট ধরা পড়ে। এরপর ওই টিটি রেল পুলিশকে খবর দেয়। এরপর রেল পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে মোহাম্মদ বেলাল নামে ওই বাংলাদেশি ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে। এবং তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। এই জেরা করার ফলে চাঞ্চল্যকর তথ্য সামনে আসে। ওই ব্যক্তিটি স্বীকার করে বাংলাদেশের সিলেট জেলার তেজপুরের বাসিন্দা তিনি।

তিনি পুলিশের সামনে এও জানান যে, আমার দাদা লখনও কারাগারে বন্দি তাই তিনি কোলকাতা যাচ্ছিলেন দাদার সাথে দেখা করতে। এর পাশাপাশি তিনি এও জানান উত্তর 24 পরগনা থেকে তিনি জাল আধার এবং ভোটার কার্ড বানিয়েছেন। বর্তমানে ওই ব্যক্তিটি কে পুলিশি হেফাজতে রাখা হয়েছে। কিন্তু সবার মনে প্রশ্ন উঠছে যে বারবার অনুপ্রবেশকারীদের রুখতে যখন কেন্দ্রীয় সরকার কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা হচ্ছে সীমান্তে তাহলে এ ঘটনা কেন ঘটছে। সীমান্তে যদি কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকতো তাহলে ওই ব্যক্তিটি সীমান্ত পেরিয়ে ঢুকলো কি করে। এদিকে যখন নাগরিকত্ব আইন এর প্রতিবাদে সারাদেশে ঝড় উঠছে তখন রাজ্যে বহিরাগতদের অনুপ্রবেশের ঘটনা আরও উত্তেজনা বাড়িয়ে দেয়।