দেশনতুন খবরবিশেষরাজনৈতিক

এই প্রথম লোকসভা নির্বাচনে ব্যবহৃত চলেছে ভিভিপ্যাট মেশিন! এই মেশিন বন্ধ করে দেবে সমস্ত বিরোধীদের মুখ।

লোকসভা ভোটের নির্ঘণ্ট ইতিমধ্যে কদিন আগে প্রকাশ হয়ে গেছে। লোকসভা ভোটের প্রস্তুতি বিরোধী দল থেকে শুরু করে শাসক দল কোন দলেই পিছিয়ে নেই।পশ্চিম বঙ্গে এই প্রথমবার 7 দফায় ভোট হতে চলেছে। সাত দফায় সংঘটিত হতে চলেছে সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচন। প্রতিবারের মতো এবারও শাসক দল থেকে শুরু করে বিরোধী দল গুলিয়ে ইভিএম নিয়ে মন্তব্য করে থাকে। কিন্তু এবার নির্বাচন কমিশন ঠিক করেছে যে এবার প্রতিটি ইভিএম মেশিন এর পাশে থাকবে ভিভিপ্যাট। এই ভিভিপ্যাট এর গুরুত্ব কিন্তু অপরিসীম। এরকম একটা ব্যবস্থা করা হচ্ছে তা আমরা অনেকেই জানিনা। আসুন এবারে জানা যাক ভিভিপ্যাট এর কাজ কী? 2001 সালে নিউইয়ার্কে প্রথমে এই পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণ চালু করা হয়।এই পদ্ধতির ফলে বুথের প্রিসাইডিং অফিসার মিলিয়ে নিতে পারবেন কটা প্রকৃত ভোট হয়েছে আর কটা ভোট জমা হয়নি। এর ফলে পুনর্নির্বাচন কে অনেকটাই এড়িয়ে যাওয়া যায়। গত কয়েকটি ভোটে এটি পরীক্ষামূলকভাবে চালু করা হয়েছিল ‘ভোটার ভেরিফায়েড পেপার অডিট ট্রেইলিং’ বা সংক্ষেপে ভিভিপ্যাট। কিন্তু এই সমস্ত ইভিএমে ভিভিপ্যাট ছিল না। কিন্তু এবার প্রথম লোকসভা নির্বাচনে সমস্ত ইভিএমে এই ভিভিপ্যাট ব্যবহার করা হচ্ছে। এটি ব্যবহার করার ফলে ভোট যন্ত্রে কোনো কারচুপি হচ্ছে কিনা তা সহজে বলা যাবে। এই ভিভিপ্যাট সঠিক ব্যক্তির ভোটদান নিশ্চিত করে। এই যন্ত্রে একটি প্রিন্টার এর মতন থাকে যেটিতে ভোটারদের মনোনীত প্রার্থীদের সমস্ত রেকর্ড থাকে। এই মেশিনে ডিসপ্লে ইউনিট এ দেখায় কোনও ভুল হয়েছে কিনা। এছাড়াও ভিভিপ্যাটে সমস্ত প্রার্থীদের সিরিয়াল নম্বার, নাম এবং সংশ্লিষ্ট প্রতীক থাকে। নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানানো হয়েছে, ইভিএম মেশিন এর সামনেই থাকবে ভিভিপ্যাট মেশিন টি।ভোট দিতে গিয়ে নির্দিষ্ট জায়গায় বোতাম টেপার পরেই লাল লাইট জ্বলে উঠবে ওই যন্ত্রটিতে। ভোটাররা একটি ‘বিপ’ শব্দ শুনতে পাবেন। এরপর ভোটার যে প্রার্থীকে ভোট দিলেন তার নাম, ক্রমিক সংখ্যা এবং প্রতীক ছাপানো অক্ষরে ব্যালট স্লিপে দেখা যাবে। সাত সেকেন্ড পর্যন্ত এই ডিটেলস ভোটাররা দেখতে পাবেন। তারপর সেই তথ্য স্লিপ মুদ্রণ যন্ত্রের ড্রপবক্সে চলে যাবে। যদি এই ভিভিপাট যন্ত্রটি ঠিকভাবে কাজ না করে বা লাল লাইট না জ্বলে বা আওয়াজ না করে তাহলে ভোটাররা প্রিসাইডিং অফিসার কে এই নিয়ে অভিযোগ জানাতে পারেন। এই পদ্ধতিটি গোয়া নির্বাচনে ব্যবহার করা হয়েছিল।

Related Articles

Back to top button