ভোকাল ফর লোকাল, বহিরাগতদের মোকাবেলাতে রাজমিস্ত্রি স্ত্রী BJP-র পার্থী, চারিদিকে প্রশংসার রব

পশ্চিমবাংলার বিধানসভার ভোট আসতে চলেছে। মার্চ মাসের শেষ সপ্তাহ থেকে আরম্ভ হয়ে যাচ্ছে বিধানসভা ভোটে প্রথম পর্ব। তাই এখন ভোট প্রচারে প্রতিটা রাজনৈতিক দলই শবর হয়েছে। ৬ মার্চ বিজেপির শীর্ষ মন্ত্রীকে প্রথম দুই দফা ভোটের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করেছে। এই প্রার্থী তালিকায় সবথেকে বড় চমক হল শালতোড়া বিধানসভা কেন্দ্রে থেকে বিজেপির প্রার্থী হয়েছেন চন্দনা বাউরি। এই মহিলার স্বামী পেশাগত দিক থেকে একজন রাজমিস্ত্রি। এই মহিলাকে প্রার্থী করার মাধ্যমে ভারতীয় জনতা পার্টি বোঝাতে চান যে সমাজের সর্বস্তরের মানুষকে তাঁরা তুলে এনেছেন প্রার্থী করবার জন্য।

৫ মার্চ তৃণমূল ভবনে জোড়া ফুল শিবিরের সুপ্রিমো মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর পরিচালিত দলের জন্য প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করেছেন। এই প্রার্থী তালিকায় রয়েছেন ২৯১ জন প্রার্থীর নাম। এরপর ৬ মার্চ বিজেপির জেনারেল সেক্রেটারি অরুণ সিংহ বিজেপি শিবিরও দুই দফা ভোটের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করেছন। প্রথম দু’দফার জন্য ৫৭ জন প্রার্থীর নাম ঘোষণা করা হয়েছে।

বিজেপির প্রার্থী তালিকায় সবথেকে বড় বিশেষত্ব হল এই তালিকায় কোনো তারকার স্থান পাননি। স্থান পেয়েছে সেই অঞ্চলের ভূমিপুত্র এবং পিছিয়ে পড়া জাতীরা। তারকাদের মধ্যে একজনই এই তালিকায় স্থান পেয়েছেন। তিনি হলেন প্রাক্তন ক্রিকেটার অশোক দিন্দা। অশোক নিন্দা জন্ম ময়নায়। এই ক্রিকেটার ওখানকার ভূমিপুত্র বলে তাঁকে ওই স্থানের প্রার্থী নির্বাচন করা হয়েছে।

 

এ বছরই বিজেপির প্রার্থী তালিকায় সবথেকে বড় চমক হল চন্দনা বাউরি। চন্দনা বাউরীর স্বামী একজন রাজমিস্ত্রি। সাধারণ রাজমিস্ত্রির স্ত্রী নির্বাচনের প্রার্থী হওয়ায় তাঁকে নিয়ে এখন সোশ্যাল মিডিয়াতে প্রচার চালানো হচ্ছে জোর প্রচার। এই মহিলাকে প্রার্থী তালিকায় নির্বাচন করার মাধ্যমে বিজেপি প্রমাণ করতে চান যে তাঁরা সমাজের প্রতিটি স্তরের মানুষের জন্যই এই বিজেপি শিবির।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে এই প্রার্থী তালিকায় রয়েছে অত্যন্ত রাজনৈতিক রণনীতি। মুখ্যমন্ত্রী বিজেপিকেএ শিবিরকে কটাক্ষ করেছিলেন বহিরাগত বলে। তাই বিজেপি যে বহিরাগত নয় এই কথাকে প্রমাণ করার জন্য নির্বাচনের ক্ষেত্রে প্রার্থী নির্বাচন করা হয়েছে সেখানকার ভূমিপুত্রদেরকেই।