Categories
দেশ নতুন খবর বিশেষ লাইফ স্টাইল

লকডাউন শেষ হলেও রেল-বিমান চালু হওয়ার সম্ভাবনা কম…

দ্বিতীয় দফার লকডাউন শেষ হতে চলেছে আগামী 3 মে। কিন্তু 3 তারিখের পর যাত্রী বাহী রেল ও বিমান পরিষেবা আদেও কী চালু হবে, এ নিয়ে উঠছে একাধিক প্রশ্ন। বিশেষ করে যারা কাজের জন্য অন্য রাজ্যে আটকে পড়া ব্যাক্তিরা এই দিনটির জন্য অপেক্ষা করে আছেন। যদিও রেল এবং বিমান 3 মে -এর পরেই চালু হবে বলে অনেকেই মনে করেছেন।
কিন্তু যাত্রীবাহী বিমান সংস্থাগুলোকে 3 রা মে এরপর থেকে কোনো বুকিং নেওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়নি।

ফলে 3 রা মে থেকেই যে বিমান পরিষেবা চালু হবে তার কোনো স্থির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। শনিবার প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংহের বাড়িতে এ নিয়ে উচ্চপর্যায়ের বৈঠক হয়। এই বৈঠকের আলোচ্য বিষয় ছিল রেল ও বিমান পরিষেবা ঠিক কবে থেকে চালু করা হবে। রেল এবং বিমান পরিষেবা যদি এক ধাক্কায় চালু করে দেওয়া হয় তাহলে করোনা সংক্রমণ পুনরায় বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে মনে করেছেন অনেকেই। তাই এই বিষয়টিকে চিন্তা-ভাবনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

শনিবার কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয় যে, এখনো পর্যন্ত যাত্রীবাহি বিমান পরিষেবা কবে থেকে চালু করা হবে তার কোনো সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি আর তার মধ্যেই এয়ার ইন্ডিয়া তাদের ওয়েবসাইটে জানায় 4 মে থেকে বেশকিছু রুটে বিমান পরিষেবা চালু করা হবে। এর জেরে সাধারণ মানুষের মনে বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়।এ ধরনের জল্পনা সৃষ্টি হওয়ার পরে বাণিজ্যিক অসামরিক বিমান পরিষেবা মন্ত্রী হরদীপ সিং পুরী টুইট করে জানান যে, “এখনো বিমান পরিষেবা চালু নিয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়নি।

এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করার পরেই বিমান সংস্থা গুলিকে তাদের বুকিং শুরু করার নির্দেশ দেওয়া হবে।” অপরদিকে অনেকদিন ধরে বিমান পরিষেবা বন্ধ থাকায় বিমান সংস্থাগুলি প্রবল চাপের মুখে পড়েছে। কারণ এই সময়ে কোনো আয় হচ্ছে না তাদের, উল্টে আবার তাদের কর্মচারীদের বেতনও দিতে হচ্ছে। এর ফলে ইন্ডিগোর মতন বড় বিমান সংস্থা তাদের কর্মচারীদের বেতনের কাটছাঁট করতে বাধ্য হয়েছে। স্পাই জেট এবং এয়ার ইন্ডিয়া ঠিক একই অবস্থার মধ্যে রয়েছে বর্তমানে। তবুও করোনাভাইরাস কে রোধ করতে বিমান পরিষেবা বন্ধ রাখা একান্ত জরুরি।