নবীন প্রজন্মের কাজ আর ভাল লাগে না, নাম না করে দেব-অঙ্কুশ-সোহম কে ধুয়ে দিলেন বিপ্লব চ্যাটার্জী

‘বিপ্লব চ্যাটার্জী’ নব্বই দশকের বাংলা চলচ্চিত্র জগতের একজন স্বনামধন্য অভিনেতা। যিনি একটা সময়ে পরিচিত চলচ্চিত্রের খলনায়ক হিসাবে। বরাবরই বিপ্লব চ্যাটার্জী ছিলেন একরোখা ও স্পষ্টবাদী। এক সাক্ষাৎকারে তিনি পরিষ্কার বললেন, ‘এখনকার নায়কেরা নায়ক হবার যোগ্যতা রাখে না’।

এটা একেবারেই বাস্তব আগেকার দিনে নায়ক হতে গেলে এত সুন্দর চেহারাও লাগত না, আর এত স্বজনপোষনও ছিল না। আগেকার দিনে মানুষের অভিনয় এর দক্ষতাই বলে দিত কে নায়ক হবার যোগ্যতা রাখে।

তরুণ প্রজন্মের সাথে প্রবীণ প্রজন্মের একটা বরাবরই সংঘাত বা মনোমালিন্য। নব্বই এর দশকের অভিনেতা অভিনেত্রীদের এখনকার নতুন নিয়ম, নতুন ধরণের সব কিছু মানিয়ে নিতে সত্যিই একটু অসুবিধা হয়ে যায়। তাই বিপ্লব বাবু বলেছেন এই প্রজন্মের অভিনেতা বা অভিনেত্রী হিসেবে আমার ঠিক কারো কাজই ভালো লাগে না।

প্রবীণ প্রজন্মের বেশির ভাগ মানুষই সামনাসামনি স্বীকার না করলেও বিপ্লব চ্যাটার্জী এই কথা সামনাসামনি স্বীকার করেছেন, কারণ তিনি বরাবরই লুকিয়ে কথা বলতে পছন্দ করেন না, এবং সকলের সামনে সত্যটা তুলে ধরার সাহস রাখেন।

আশি-নব্বই দশকের অভিনেতা বিপ্লব চ্যাটার্জী টলিউডের প্রায় শতাধিক ছবিতে দুর্দান্ত খলনায়কের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন। খলনায়কের ভূমিকার বাইরে অন্য কোনও চরিত্রে তিনি সেভাবে কখনও নিজেকে মেলে ধরেননি। তিনি এই কথাও জানিয়েছেন, এখনকার অভিনেতা বা অভিনেত্রীদের থেকে চরিত্রের প্রতি যেই দরদ খুঁজে পান না। অভিনেতা বিপ্লব চ্যাটার্জির এই কথা সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড় তুলেছে, অবশ্য বেশিরভাগ নেটাগরিকরা বিপ্লব বাবুকেই সমর্থন করছেন।