রাজ্যে শৈত্যপ্রবাহের পরিস্থিতি, আবহাওয়া নিয়ে বড়সড় আপডেট দিল মৌসুম ভবন

কিছুদিন আগেই অনেকের মনে এই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছিল নভেম্বর পেরিয়ে ডিসেম্বর ঢুকে যাওয়ার পরও এখনো পর্যন্ত সঠিকভাবে ঠান্ডা অনুভব করতে পারলাম না । ঠিক কয়েকদিন আগেই এমনটা বক্তব্য ছিল প্রায় প্রতেক রাজ্যবাসীর। তবে এবার সম্প্রতি পাল্টেছে তার ধরন । আবহাওয়া গাইছে এক অন্য সুর। তবে এখন আর শীতের আমেজ পেলাম না এ কথা বলছে না কোনো রাজ্যবাসী। বরং তারাই এখন বলছে এর আগে এত ঠান্ডা পরেনি । তবে কীভাবে হল এটা।

 

অতএব এটা বোঝা যাচ্ছে যে গত তিন’দিন ধরে ঠান্ডার প্রকোপ অত্যধিক হারে বেড়ে চলেছে রাজ্যের বুকে এবং আগামী কয়েকদিন যে বাড়বে এমনটাই আভাস দিল আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর। গত দুদিন আগে আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছিল যে উত্তরে হওয়ার জন্য রাজ্যের মধ্যে ঠান্ডার প্রকোপ বাড়বে।

 

আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে যে আগামী তিনদিন জারি থাকবে এই ঠান্ডার প্রকোপ অর্থাৎ সকাল থেকে যে পরিমাণ ঠান্ডা অনুভব করা যাচ্ছে আগামী তিন দিন ঠিক একই রকমভাবে অনুভব করা যাবে এই ঠান্ডা।এই মুহূর্তে গোটা রাজ্যে দেখা দিয়েছে শৈত্যপ্রবাহের পরিস্থিতি। আলিপুর আবহাওয়া দফতর সূত্রে খবর, দার্জিলিংয়ের কালিম্পঙে যেখানে ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা, সেখানে পশ্চিম বর্ধমানের পানাগড়ে তাপমাত্রা নেমে এসেছে ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে।

আর বর্তমানে কলকাতার তাপমাত্রা নেমে এসেছে স্বাভাবিকের তুলনায় ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস নীচে। যেখানে কলকাতায় আজ সর্বনিম্ন তাপমাত্রা দাঁড়িয়েছে ১১ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। শুধু তাই নয় আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাস, আগামী ৪৮ ঘণ্টা শৈত্যপ্রবাহের পরিস্থিতি বোঝায় থাকবে রাজ্যে। এরকম আবহাওয়া শীত বোঝায় থাকবে আগামী বড়দিন পর্যন্ত বলে অনুমান করছেন আবহবিদরা।

যদিও এক্ষেত্রে আগামী কয়েকদিন বৃষ্টিপাতের কোন সম্ভাবনা নেই একথা জানিয়ে দেওয়া হয়েছে আলিপুর আবহাদপ্তরের তরফ থেকে। কিন্তু সকাল থেকে মানুষের কাজের ব্যাঘাত ঘটছে শুধুমাত্র হঠাৎ করেই প্রকোপ শীতের জন্য।এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা যে আগামী দিনেও ঠান্ডার পরিমাণ বাড়বে না কমবে তার। আরও মানুষকে ঠান্ডা ভোগান্তি ফেলবে নাকি কিছুটা হলেও স্বস্তির মুখে আনবে সেটা শুধুমাত্র সময় বলবে।