কী কারণে বঙ্গ থেকে ফুড়ুৎ শীতের হাওয়া, রাজ্যে কনকনে ঠাণ্ডা ফেরার দিনক্ষণ জানাল আবহাওয়া দফতর

সময়টা জানুয়ারি মাস। বইয়ের পাতা বলছে এই সময়টা শীতকাল। কিন্তু আবহাওয়ার গতি প্রকৃতি দেখলে বোঝায় মুশকিল হয়ে উঠেছে এটা শীতকাল নাকি গরম কাল! তাপমাত্রার পারদ দিনকে দিন বেড়েই চলেছে।তবে সাময়িক বিরতি নিলেও আবারও বঙ্গে ফিরতে চলেছে শীত৷ জম্মু ও কাশ্মীরের পার্বত্য অঞ্চলে দেওয়ালের মত বাধা হয়ে দাঁড়ানো এই পশ্চিমী ঝঞ্ঝা এবার আঘাত হানতে চলেছে। যার ফলে আগামী দিনে তাপমাত্রা কমবে উত্তর পশ্চিম ভারতে। একধাক্কায় প্রায় ৫ ডিগ্রি পর্যন্ত কমে যেতে পারে বলেও জানা গিয়েছে।

 

১২ জানুয়ারির পর থেকে শীত ফিরবে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া দপ্তর। কিন্তু কেন হঠাৎ শীতের মাঝে এই গরম আবহাওয়া?একদিকে যেমন রয়েছে পশ্চিমী ঝঞ্ঝা অন্যদিকে সেরকম রয়েছে পুবালী হাওয়া। এই দুই পৌষের শীতের পথে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। তবে মকর সংক্রান্তিতে বঙ্গবাসী কে পিঠেপুলি খাওয়ার আনন্দ দিতে কিছুটা ঠান্ডার আমেজ ফিরতে পারে।

যদিও এই মুহূর্তে দক্ষিণবঙ্গে বৃষ্টি হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই৷ তবে দক্ষিণবঙ্গে বৃষ্টি এখন না থাকলেও উত্তরবঙ্গের কালিম্পং এ হালকা বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে। আগামী সপ্তাহ থেকে আবার শীতের আমেজ টের পাওয়া যাবে।আর আবারো পৌষ সংক্রান্তিতে ঠান্ডা পড়বে। আজকের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩১ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা থাকবে ২৩ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি।

আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে বাংলার আকাশ সকালের দিকে রৌদ্রোজ্জ্বল থাকবে। গতকালের তুলনায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা খুব বেশি না বাড়লেও সর্বনিম্ন তাপমাত্রা বৃদ্ধির সম্ভাবনা রয়েছে। পাশাপাশি আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, আগামী তিনদিন বিহার ও গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গে সকালের দিকে হালকা কুয়াশার পরিবেশ তৈরি হবে। উত্তর-পশ্চিমের রাজ্যগুলিতে শৈত্য প্রবাহের সতর্কতা জারি করা হয়েছে। সেখানে তাপমাত্রা নামবে হু হু করে।