নতুন খবররাজনৈতিকরাজ্য

মেট্রো চ্যালেনের ধরনা মঞ্চে সাতসকালে হাজির তৃণমূল সমর্থকরাও, কলকাতা পুলিশ কমিশনার কে জেরা করার বিষয় নিয়ে আজই মামলা উঠবে সুপ্রিম কোর্টে।

রবিবার মেট্রো চ্যানেলে ধরনা মঞ্চ তৈরি হওয়া পর্যন্ত মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সারা রাত খোলা আকাশের নিচে বসে ছিলেন। রবিবার রাত দেড়টা নাগাদ ধরনা মঞ্চ তৈরি হওয়ার পর ধরনা মঞ্চে ওঠেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এ দিন রাত্রে তিনি একটুকুও ঘুমাননি। রাত্রে পরপর সর্বভারতীয় নেতারা তৃণমূল নেত্রী কে ফোন করেন। তৃণমূলের ব্রিগেড সমাবেশে যেসব নেতারা উপস্থিত ছিলেন তারা প্রায় সকলেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ফোন করেছেন এদিন। সম্প্রতি কলকাতা পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারের বাড়িতে সিবিআই হানার প্রতিবাদে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মেট্রো চ্যানেলে রবিবার সন্ধ্যা থেকে ধরনায় বসেন।

রবিবার দুপুর থেকে রাজ্য সরকার ও সিবিআইয়ের মধ্যে তুমুল সংঘর্ষ চলে। কলকাতা পুলিশ সিবিআই আধিকারিকদের শেক্সপিয়ার সরণি থানায় নিয়ে যান। প্রায় তিন ঘন্টার মতন তারা ওখানে ছিলেন। এরপর সল্টলেকের সিজিও কম্প্লেক্স ও নিজাম প্যালেসে পুলিশ চলে যায়। এরপরে সিবিআই ওই 2 জায়গাতে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করে। অপরদিকে রবিবার রাত থেকেই ধরনা মঞ্চে ভিড় জমাতে থাকে তৃনমূলের কর্মী – সমর্থকদের। রবিবার রাতেই বিভিন্ন ধরনের পোস্টার নিয়ে হাজির হয়ে যায় অনেক তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা। সোমবার ব্লক স্তরে সিবিআই অভিযানের প্রতিবাদে বিক্ষোভ দেখাবেন দলের কর্মীরা। টালিগঞ্জ, রাসবিহারী, পার্কসার্কাস এমনকি মুর্শিদাবাদ থেকে দলের কর্মী-সমর্থকরা সাত সকালেই ধরনা মঞ্চে হাজির হয়ে যায়। অধিকাংশ কর্মীদের বক্তব্য দিদির পাশে থাকতে এই খানে আসা তাদের।

কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে লেখা এক পোস্টার হাতে তৃণমূল সমর্থক জানালেন, অনেকদিন পর দিদি রাজ্যে একটা পরিবর্তন এনেছেন। তিনি ডাকলে কয়েক ঘণ্টার মধ্যে লাখ লাখ মানুষ হাজির হয়ে যেতে পারে। সোমবারে তৃণমূলের দলীয় এবং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এর কয়েকটি সরকারি কর্মসূচি রয়েছে। এর মধ্যে একটি কর্মসূচি হল তৃণমূলের কৃষি সভা।  জানা গিয়েছে, ধর্মতলার ধরনা মঞ্চ থেকেই ওই সভার বার্তা দেবেন তৃণমূল নেত্রী। তারপর আবার সোমবার হয়েছে রাজ্যের বাজেট। বাজেটের আগে মন্ত্রিসভার বৈঠক হয় সেই বৈঠক করবেন তিনি ধর্মতলার ধরনামঞ্চ থেকে।আরো জানা গিয়েছে যে, পুলিশের মডেল সেরমনিও হবে এই মঞ্চ থেকে। এক কথায় বলা যেতে পারে যে পুরো সরকার এখন উঠে এসেছে ধর্মতলার ধরনা মঞ্চে।

অপরদিকে আবার আজ সকাল সাড়ে দশটার সময় সুপ্রিম কোর্টে এই নিয়ে মামলা উঠবে। রাজ্য সরকারের হয়ে এই মামলা লড়বেন অভিষেক মনু সিংভি। এদিন রাজ্য সরকারের কাছ থেকে যে দুটি বিষয় আদালতে তুলে ধরা হবে সেগুলো হলো, 13 ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত কলকাতা হাইকোর্টে একটি  স্থগিতাদেশ ছিল। হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ থাকা সত্ত্বেও সিবিআই কী করে পুলিশ কমিশনারের বাড়িতে যায়। এছাড়াও পুলিশ কমিশনার কে জেরা করার আগে রাজ্য সরকারের একটা মতামত নেওয়ার প্রয়োজন থেকেই যায়। সেটা না করে কিভাবে পুলিশ কমিশনার বাড়িতে যাই সিবিআই এর অফিসার।

Related Articles

Back to top button