প্রকাশ্যে এল চাইনিজ মোবাইলের ভয়ঙ্কর গাফিলতি, এক IMEI নম্বর দিয়ে চলছে হাজার হাজার স্মার্টফোন

এর আগে বহুবার একথা অভিযোগ হিসেবে উঠে এসেছে যেখানে একাধিকবার চাইনিজ মোবাইল সংস্থাগুলিকে মোবাইলের তথ্য চুরি করার জন্য দোষারোপ করা হয়েছে। অনেকবারই দেখা গেছে অনেক চাইনিজ মোবাইল সংস্থা তাদের কাস্টমারদের ডাটা চুরি করছে। সম্প্রতি কিছুদিন আগেও ডাটা চুরি করার কথা শোনা যাচ্ছিল চাইনিজ মোবাইল সংস্থা শাওমির বিরুদ্ধেও, যেখানে শাওমির বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ দায়ের করা হয়েছিল ভারতীয় কাস্টমারদের ডাটা চুরি করার জন্য।

তবে এবার প্রকাশ্যে এল চাইনিজ মোবাইল সংস্থার এক চাঞ্চল্যকর তথ্য যা সকলকে রীতিমতো চমকে দিয়েছে। এবার এই যে তথ্যটি বেরিয়ে এসেছে সেটি চাইনিজ মোবাইল সংস্থা ভিভোর নিয়ে, এখানে জানতে পারা গেছে একই IMEI নম্বরে 13557 টি মোবাইল ফোন এক্টিভ রয়েছে এই সংস্থার। এই তথ্যটি প্রকাশ্যে আসে যখন মেরঠের এডিজি জোনে কর্তব্যরত এক পুলিশ কর্মীর যখন ব্যবহার করা ভিভো মোবাইল টি খারাপ হয়ে গিয়েছিল।আর যখন তিনি এই মোবাইল ফোনটিকে সারানোর জন্য সার্ভিসিং সেন্টারে নিয়ে যান তখন ফোনটি ভালো হয়ে গেলেও কিছু দিন পরেই আবার সিটি খারাপ হয়ে যায়।

আর তারপর তিনি মেরঠের জোনের সার্ভিলেন্স টিমের কয়েকজনের সঙ্গে এই বিষয় নিয়ে কথা বলেন। আর সেই টিমের সদস্যরা খুঁজে দেখেন এই একই ইএমআই নম্বরে অনেকগুলি মোবাইল ফোন চালু রয়েছে। আর তারপরই পুলিশের একটি বিশেষ দল এই বিষয় নিয়ে তদন্তে নামে গত সেপ্টেম্বর মাস থেকে মেরঠ পুলিশের সাইবার ক্রাইম ডিপার্টমেন্ট তদন্ত শুরু করে এই বিষয় নিয়ে। এত দিনে তারা নিশ্চিত হয়েছে মোট 13 হাজারেরও বেশি ফোন এখনো পর্যন্ত এক্টিভ রয়েছে এই নম্বরে।

এই বিষয় নিয়ে মেরঠের পুলিশের সাইবার সেলের তরফ থেকে ভিভো মোবাইলের এক কর্মকর্তাকে নোটিশ পাঠানো হয়েছে। আর সেই অধিকারীকের তরফ থেকে এই বিষয় নিয়ে জবাব পাঠানো হয় পুলিশের সাইবার সেলকে। যদিও এ বিষয়ে অধিকারীকের জবাবে সন্তুষ্ট নন তারা,এবং পুলিশের সাইবার সেলের তরফ থেকে জানানো হয়েছে এ বিষয়ে তারা সংস্থার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। তবে শুধু তাই নয় এরকম ধরনের মোবাইল ব্যবহার করলে অপরাধের সংখ্যা আরো দ্বিগুণ পরিমাণে বাড়তে পারে গত সেপ্টেম্বর মাসে পুলিশকর্মী আসারাম তৎকালীন এডিজির কাছেও এ ব্যাপারে অভিযোগ জানিয়েছিলেন। আর তারপরই গত কয়েক মাস ধরে এই বিষয় নিয়ে তদন্ত করছে পুলিশ।

More Stories
প্রভিডেন্ট ফান্ডের বড় ঘোষণা, আগামী তিন মাস মোদি সরকার নিজেই দেবে সমস্ত টাকা