জাঁকিয়ে পড়তে চলেছে কনকনে ঠান্ডা, বৃষ্টিতে ভিজতে চলেছে গোটা বঙ্গবাসী! আবহাওয়া নিয়ে বড়োসড়ো আপডেট

শীতকাল কেন আসছে না, এই নিয়ে খুব রাগ ছিল বঙ্গবাসীর। তবে বেশ কয়েকদিন ধরে যেভাবে জাঁকিয়ে শীত পড়েছে, তাতে আর পালানোর পথ পাচ্ছে না জনসাধারণ। তবে বড়দিন হতে না হতেই তাপমাত্রা আরও কিছুটা বাড়তে শুরু করে দিল। সেই হাড় কাঁপানো শীত যেন উধাও হয়ে গেল হঠাৎ। তবে এরই মধ্যে আবহাওয়া দপ্তর জানালো একটি বড়সড় খবর।

শীতকালের পারদ এখনই না বাড়লেও এই ভরা শীতে বর্ষার দেখা পেতে পারি আমরা। আবহাওয়াবিদদের মতে, রাজ্যের বেশ কিছু এলাকায় মঙ্গলবার এবং বুধবার বিক্ষিপ্ত বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। উত্তর এবং দক্ষিনে বেশকিছু জেলা যেমন পুরুলিয়, বাঁকুড়া, বীরভূম, পশ্চিম মেদিনীপুর,ঝাড়গ্রাম,হুগলি, পূর্ব বর্ধমান,নদিয়া, মুর্শিদাবাদ,দার্জিলিং এবং কালিম্পং জেলায় রয়েছে বৃষ্টির সম্ভাবনা।

চলুন এক নজরে দেখে নেওয়া যাক আজকের তাপমাত্রা সম্পর্কে। আজকে কলকাতার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা থাকবে ২৮ ডিগ্রী সেলসিয়াসের কাছাকাছি এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা থাকবে ১৯ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি। সকালের দিকে কিছুটা মেঘলা আকাশ ছিল। তবে এখনই শীতকালকে বিদায় দেবার কিছু নেই। নিম্নচাপের ফলে যেহেতু শীত আসতে অনেকটা দেরি করেছে তাই বেশ কিছুটা দেরি করবে বিদায় নিতে।আবহাওয়া বিদরা জানিয়েছেন, বাংলার আবহাওয়ার ক্যালেন্ডার জুড়ে এখন শুধু মাত্র শীতকালের দেখা পাওয়া যাবে।

পিঠে পুলি, কড়াইশুঁটির কচুরি সঙ্গে কম্বলের সখ্যতা এখনই ঘুচে যাবে না। জানুয়ারি মাস জুড়ে পিকনিক এবং ঘুরতে যাওয়ার প্ল্যান অনায়াসে করতে পারেন সাধারণ মানুষ।গ্রীষ্মপ্রধান দেশে মাত্র কয়েক মাস থাকে শীত। তার মধ্যে যদি শীতের সময়সীমা আরও সীমিত হয়ে যায় তাহলে স্বাভাবিক ভাবেই মন খারাপ হয়ে যায় সকলের। ফেব্রুয়ারি মাস পর্যন্ত এই শীতকাল যদি না থাকে শুধুমাত্র মানুষের মন খারাপ হবে তা নয় ফসলের হবে সমূহ ক্ষতি। কিছুদিন আগের বৃষ্টিতে ইতিমধ্যেই ফসলের ক্ষতি হয়ে গেছে। তাই আরো একবার বৃষ্টির পূর্বাভাস শুনে মাথায় হাত কৃষকের।