এবার দেশের আমজনতাও “ট্যুর অফ ডিওটির” দরুন যোগ দিতে পারবেন সেনাবাহিনীতে..

আমাদের মধ্যে অনেকেই ছোট থেকে ইচ্ছে থাকে যে ভারতীয় সেনাবাহিনীতে কাজ করবো। কিন্তু দুর্ভাগ্য বশত সেই ইচ্ছা সবার পূরন হয় না। শত চেষ্টা করেও পাওয়া যায়না সেনাবাহিনীতে কাজের সুযোগ। কিন্তু এবার থেকে সেই সমস্ত মানুষদের জন্য সেনা বাহিনীতে কাজ করার ইচ্ছা পূরণ হতে চলেছে। খবর সূত্রে জানা গিয়েছে ভারতীয় সেনাবাহিনী এবার থেকে আমজনতাকেও সেনাবাহিনীতে যোগ দেওয়ার ব্যাপারে খুব তাড়াতাড়ি সবুজ সংকেত দিতে চলেছে।

ভারতের সেনাবাহিনীর সূত্রে খবর পাওয়া গেছে যে, তিন বছরের জন্য আমজনতা সেনাবাহিনীর হয়ে কাজ করতে পারবেন। এই পুরো প্রক্রিয়াটির নাম দেওয়া হয়েছে “ট্যুর অফ ডিউটি”। দেশের এমন অনেক ট্যালেন্ট আছে যারা সেনাবাহিনীতে ঢুকলে হয়তো সেনাবাহিনী অনেক শক্তিশালী হবে। তাই সেনাবাহিনীর তরফ থেকে এমন চিন্তাভাবনা করা হয়েছে। সাধারণত যারা সেনাবাহিনীতে কাজ করে তাদের কাজের উর্ধ্বসীমা হয় 10 বছর। কিন্তু এই ট্যুর অফ ডিউটিতে কাজের উর্ধ্বসীমা হবে মাত্র তিন বছর।

অর্থাৎ যারা এই প্রক্রিয়াটিতে সেনাবাহিনীতে যোগ দেবেন তারা সেনাবাহিনীর হয়ে তিন বছর কাজ করতে পারবেন। রিপোর্ট অনুসারে জানানো হয়েছে এমনিতেই ভারতীয় সেনাবাহিনীতে চাহিদা এবং যোগানের সংখ্যার মধ্যে বিপুল পার্থক্য রয়েছে। 2019 সালে প্রতিরক্ষা স্ট্যান্ডিং কমিটির রিপোর্ট অনুসারে জানা গিয়েছে, ভারতীয় সেনাবাহিনীর অফিসার ক্যাডারের ঘাটতি রয়েছে 14 শতাংশের কাছাকাছি। এই রিপোর্টে আরো বলা হয়েছে,ভারতীয় সেনাবাহিনী তে মোট 42233 জন কর্মকর্তা এবং মোট 11.94 লক্ষ জাওয়ান রয়েছে।

এছাড়াও এই রিপোর্টে ভারতীয় নৌবাহিনীতে জাওয়ান এর সংখ্যা বলা হয়েছে 10 হাজার অফিসার এবং 57310 জন জাওয়ান রয়েছে। তবে বর্তমানে যুবসম্প্রদায় যাতে সেনাবাহিনীতে যোগ দেওয়ার জন্য আরো আগ্রহ প্রকাশ করে তার জন্য সমস্ত রকম প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে ভারতীয় সেনাবাহিনী তরফ থেকে। আর এর জন্যই আগে সেনাবাহিনীতে সর্ট সার্ভিস কমিশন আনা হয়েছিল। এতে সেনাবাহিনীতে যোগ দেওয়ার পর কাজ করার নিয়ম ছিল। এরপর পাঁচ বছর থেকে বাড়িয়ে 10 বছর করা হয়।

অপরদিকে আবার সেনা জওয়ানদের যে ঘাটতি চলছে তা পূরণ করার জন্য অবসরের বয়স বাড়ানোর কথা ভাবনা চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে সেনাবাহিনীর তরফ থেকে। বর্তমানে নিয়ম অনুসারে একজন জাওয়ান ট্রেনিং শেষ করার পর 15 বছর সেনাবাহিনীতে কাজ করে থাকে। 15 বছর ধরে কাজ করা জাওয়ানের অবসর নেওয়ার পর স্বাভাবিক ভাবেই সেনাবাহিনীতে একটা ঘাটতি হয়ে যায়। খবর সূত্রে জানা গিয়েছে, জাওয়ানেদের যদি অবসরের সময়সীমা বাড়ানো হয় তাহলে মোট তিনটি বাহিনী মিলিয়ে 15 লাখ সেনা উপকৃত হবেন। এছাড়াও সেনাবাহিনীর যে ঘাটতি সেটিও পূরণ হয়ে যাবে।

Related Articles

Close