এবার বিশ্বের দরবারে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, বক্তব্যে থাকতে পারে চীনকে শায়েস্তা করার একাধিক রণকৌশলও…

করোনা মহামারী ঠেলায় কার্যত বন্ধ রয়েছে গোটা বিশ্ব! তবে নিজ নিজ দেশের অর্থনীতিক অবস্থার কথা ভেবে শুরু করা হয়েছে একাধিক কর্মক্ষেত্র। যদিও এক্ষেত্রে ভারতে এই মরণ ভাইরাস করোনার আক্রমণ একটু পরে হয়েছিল যার ফলে বিশ্বের অন্যান্য দেশের কাছ থেকে শিক্ষা নিয়ে ভারতে ধাপে ধাপে চালু করা হয়েছিল লকডাউন। যার দরুন একথা বলা যেতে পারে ভারতে অন্যান্য দেশের তুলনায় করোনার জেরে মৃত্যুর সংখ্যা অনেকখানি কম রয়েছে। তবে এবার বিশ্ব দরবারে ভাষণ দিতে চলেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, আগামী বৃহস্পতিবার দিন থেকে ব্রিটেনের ইন্ডিয়া গ্লোবাল উইকের মঞ্চে ভাষণ দেবেন তিনি।

আর এক্ষেত্রে ভারতের বাণিজ্যিক ও বিদেশী বিনিয়োগের দিকগুলো নিয়ে তিনি তার বক্তৃতায় তুলে ধরবেন বলে মনে করা হচ্ছে। তবে বর্তমানে যেমনটা আমরা জানি এই মুহূর্তে করোনা পরিস্থিতির মধ্যে বিশ্ব দরবারে এরকম এক মঞ্চে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ উল্লেখযোগ্য তাৎপর্য পেতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। যেমনটা আমরা জানি এই মুহূর্তে গোটা বিশ্ব মহামারী করোনার ছায়ার হাত থেকে বেরোনোর জন্য সংঘর্ষে লেগে পড়ে রয়েছে। শুধু তাই নয় এই বিষয়ে গোটা বিশ্বের কাছে ভারত কেন্দ্রীয় ভূমিকা পালন করছে, আর এটা সকল ভারতবাসীর কাছে একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

তাছাড়া এই মুহূর্তে ভারতের সাথে চীনের সম্পর্ক খুব একটা ভালো যাচ্ছে না যার দরুন ভারত সরকারের তরফ থেকে একাধিক চিনাপণ্য কে ভারতে ইতিমধ্যে ব্যান করে দেওয়া হয়েছে। তাছাড়া চীনকে ডিজিটাল পদ্ধতিতে শায়েস্তা করতে ভারতের ব্যান করে দেওয়া হয়েছে 59 টি চীনা অ্যাপও। তাই অনেকেই মনে করছেন এক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী যে বক্তব্য রাখবেন সেখানে চীনের কিছু কথা তুলে ধরতে পারেন অর্থাৎ আগামী দিনে চীনের কাছ থেকে কী কী জিনিস আমদানী করা হবে সেগুলোর ওপর লগ্নি আনতে পারেন প্রধানমন্ত্রী। এই দিন বিশ্ব দরবারে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য অনুষ্ঠান অনেকখানি গুরুত্ব রাখতে পারে গোটা ভারতবাসীর কাছে।

এই বিষয়ে ইন্ডিয়ার আইএনসি গ্রুপের সিইও ও চেয়ারম্যান মনোজ লাদওয়া জানান, আমি নিশ্চিত যে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বার্তা গোটা বিশ্বকে আবার পুনর্জীবিত করে তুলবে। যেহেতু এই মুহূর্তে লকডাউন এর পরিস্থিতি সেহেতু এই গোটা বিষয়টিকে করা হবে ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে যেখানে তিন দিনের সামিত করা হবে। আর এই ভার্চুয়াল সামিতে বক্তা তালিকার ভূমিকাতে রয়েছেন রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল, বিদেশ মন্ত্রী এস জয়শঙ্কর, তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী রবি শংকর প্রসাদ, অসামরিক বিমান পরিবহনমন্ত্রী হরদীপ সিং পুরী ও দক্ষতা উন্নয়ন মন্ত্রী মহেন্দ্রনাথ পান্ডে। অন্যদিকে এক্ষেত্রে বৃটেনের পক্ষ থেকে এক্ষেত্রে বিশেষ বক্তিতা রাখবেন প্রিন্স চার্লস। তাছাড়া সে দেশের বিদেশ সচিব, স্বাস্থ্য সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব সকলেই এই ভার্চুয়াল সামিটে সামিল হবেন।

Related Articles

Back to top button