এবার কঙ্গনার সমর্থনে মাঠে নামছে একের পর এক বড় বড় অভিনেতা, বিখ্যাত পত্রকার, রাজনেতা…

বলিউড অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর পর থেকেই শিবসেনা নেতৃত্বের সঙ্গে টানা বাগযুদ্ধ, সঙ্ঘাত চলছে কঙ্গনা রানাউতের। এমন কী অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাওয়াত এটা পর্যন্ত মন্তব্য করে বসেছেন মুম্বাই নিরাপদ নয়, বর্তমানে মুম্বাই পাক অধিকৃত কাশ্মীরে পরিণত হয়েছে। আর তারপর থেকেই শিবসেনার সাথে কঙ্গনা রানাউতের যে সংঘাত চলছিল সেটি আরও এক চরম পর্যায় ধারণ করেছে। উল্টো দিকে শিবসেনাও কার্যত তাঁকে মুম্বইয়ে না ঢোকার হুমকি দেয়। আর তার মধ্যে আবার বুধবার কঙ্গনার পালি হিলসের অফিস বেআইনি নির্মাণের অভিযোগে ভাঙতে শুরু করেন বৃহন্মুম্বই পুর কর্তৃপক্ষ।

 

কঙ্গনা রানাউতের সম্পত্তির ওপর এভাবে বিএমসির পদক্ষেপ মহারাষ্ট্র সরকারকে এখানে প্রশ্নের মুখে দাঁড় করিয়েছে। এমনকি এই ঘটনার পর থেকে টুইটারে অনেকেই মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে কে ট্যাগ করে প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করতে শুরু করেছেন। যেখানে অনেকেই বলছেন এটা কোন প্রকার উচিত পদক্ষেপ ছিল কি না? শুধু তাই নয় এক্ষেত্রে রাজনীতি থেকে শুরু করে বলিউডের অনেক বিখ্যাত মানুষ BMC এর এই পদক্ষেপের সমালোচনাতে সরব হয়েছেন। বলিউড অভিনেতা অনুপম খের কেউ এই পদক্ষেপে তুমুল সমালোচনা করতে দেখা দিয়েছে যেখানে তিনি লিখেছেন ভুল ভুল ভুল এটা ভুল, এই ভাবে কারো সম্পত্তি ভেঙে দেওয়া একদম ভুল পদক্ষেপ। এর সবচেয়ে বড় প্রভাব কঙ্গনা রানাওয়াতের বাড়িতে না মুম্বাই মাটি আর বিবেকে হয়েছে।

 

অন্যদিকে এই ঘটনার চর্চাও করতে বাদ যায়নি রাজনৈতিক মহলও যেখানে রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবিশ একটি ভিডিও জারি করেছেন এবং বলেছেন এরকম ঘটনা ইতিহাসে এর আগে কোনদিনও দেখা যায়নি। তিনি বলেন নিজের বিরুদ্ধে কথা বলা মানুষকে আমরা রাস্তায় থামিয়ে মারব আর এরকম করার জন্য সরকার সমর্থন করছে এটা মহারাষ্ট্রের ইতিহাসে কোন দিনও হয়নি। আর সরকারের এরকম পদক্ষেপ গ্রহণের কারণে গোটা দেশে আজ মহারাষ্ট্রের অপমান হচ্ছে।

অন্যদিকে ছোটপর্দার বিখ্যাত অভিনেত্রী দেবলীনা ভট্টাচার্য যাকে প্রধানত “গোপী বহু” নামে চিনে থাকেন দর্শকেরা তিনিও এ বিষয়ে নিয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন।তিনি বলেছেন এরকম ঘটনা দুঃখজনক একজন পরিচিত এবং বিখ্যাত মানুষ হওয়ার খাতিরে উনি হয়তো অবৈধ নির্মাণ করেন নি। তাই উনি বলেছেন যে বিএমসি দ্বারা দেওয়া অনুমতির প্রমাণ আছে ওনার কাছে, তাই সেই কারণে উনার মুম্বাই পৌঁছানো না পর্যন্ত কাগজপত্র দেখানোর আগেই এই ভাবে বিল্ডিং ভেঙ্গে দেওয়া সঠিক হয়নি। যদি কিছু ভুল থাকতো তাহলে সেটিকে শুধরানো যেত তবে উনার অনুপস্থিতিতে এরকমভাবে অফিস ভাঙ্গা ঠিক না।

তার পাশাপাশি বিখ্যাত নিউজ অ্যাঙ্কার রোহিত সরদনাও এ বিষয়ে নিজের প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন এবং জানিয়েছেন ফ্যাসিসম,ফ্যাসিসম করেছে জানো মানুষগুলো এই মুহূর্তে গর্তে লুকিয়েছে? তারা কী এই মুহূর্তে আসল ফ্যাসিসম দেখে ভয় পেয়ে গিয়েছে।অন্যদিকে আর এই ঘটনা নিয়ে কঙ্গনার আইনজীবী বম্বে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন, আদালত অফিস ভাঙার কাজে আপাতত স্থগিতাদেশ দিয়েছে।