ব্যবসা শুরু করবেন ভাবছেন! দেরি না করে আজই শুরু করে দিন এই কাজ, স্বল্প বিনিয়োগে মিলবে বড়সড় লাভ

করোনা সংক্রমনের জেরে অর্থনৈতিক দুর্দশা গ্রাস করেনি এমন মানুষের সংখ্যা নেই বললেই চলে৷  কিন্তু হাতের কাছে এমন কিছু ব্যবসা রয়েছে যেখানে আপনি অল্প বিনিয়োগ করলেও নিয়মিত এই ব্যবসা থেকে আয় করে অর্থনৈতিক সুবিধা লাভ করতে পারবেন।  তেমনি একটা ছোট ব্যবসা হচ্ছে টি শার্ট প্রিন্টিং।

আজকের দিনে প্রিন্টেড টি-শার্ট এর চাহিদা প্রচুর।  জন্মদিনে বিশেষ কোনো অনুষ্ঠানে, বিশেষ কোনো সংগঠন কিংবা বন্ধু-বান্ধব মিলে দল পাকিয়ে  ঘুরতে গেলেও মানুষ কিন্তু টি-শার্ট বানায়।  এছাড়া স্কুল-কলেজ বিভিন্ন সংস্থা তাদের লোগো দিয়ে টি শার্ট প্রিন্ট করছে৷  তাই এই ব্যবসাটিতে লাভের সম্ভাবনা প্রচুর।

সামান্য মূলধন দিয়ে আপনি এই ব্যবসা শুরু করতে পারবেন।  এর জন্য আপনার প্রয়োজন হবে 50 থেকে 70 হাজার টাকা।  এই অঙ্কের টাকা আপনি বিনিয়োগ করলে মাসে 30 থেকে 40 হাজার টাকা পর্যন্ত উপার্জন করতে পারবেন।  এরপর যদি আপনি ব্যাবসা সফল ভাবে চালাতে পারেন তাহলে পরবর্তীতে আরও বেশি বিনিয়োগ করে আরো বেশি লাভ করতে পারবেন।

এই ব্যবসায় যুক্ত আছেন এমন ব্যক্তিরাই জানাচ্ছেন, এই ব্যবসায় যদি আপনি মধ্যস্থতাকারী ব্যক্তিকে এড়াতে পারেন এবং সরাসরি আপনি যদি কাস্টমারের সঙ্গে বিজনেস করতে পারেন তাহলে 50 শতাংশ পর্যন্ত লাভের মুখ দেখতে পারবেন।  বিক্রির জন্য এখন অনলাইন বাজার রয়েছে।  সোশ্যাল মিডিয়ায় আপনি আপনার টি-শার্টের বিজ্ঞাপন দিতে পারবেন।

মুখ পুড়ল বেজিংয়ের! ব্যর্থ চীনা টিকা, চাপে ভারতের কাছেই দ্বারস্থ ব্রাজিল

একেবারে কম খরচে একটা ব্র্যান্ড তৈরি করে এই সমস্ত ই  কমার্স প্ল্যাটফর্ম এর মাধ্যমে আপনি আপনার সমস্ত পণ্য বিক্রি করতে পারবেন।  ধীরে ধীরে আপনার ব্যবসার পরিধি বাড়িয়ে আপনি একটি  মেশিন ব্যবহার করতে পারেন৷  এর ফলে আরো বেশি সংখ্যক মানুষের কাছে আরো বেশি ভালো কোয়ালিটির টি-শার্ট আপনি পৌঁছে দিতে পারবেন।

মেশিনের দাম কিন্তু খুবই কম।  যা দিয়ে আপনি একটি টি-শার্ট প্রিন্ট করতে পারবেন এবং তার জন্য সময় লাগবে মাত্র 1 মিনিট।  তবে অটোমেটিক এই মেশিনে প্রিন্ট করতে শুধু সময় কম লাগবে তাই নয় প্রোডাকশন হবে অত্যন্ত ভালো।  তাই ব্যবসা করার কথা ভেবে থাকলে আপনি একবার অন্তত চেষ্টা করে দেখতে পারেন।