গ্রীষ্মের মরসুমে বাড়িতে লাগান এই গাছগুলি, বাড়িকে শীতল করার পাশাপাশি করবে অক্সিজেন সরবরাহ

চলে এসেছে গ্রীষ্মকাল। গরমের তাপদাহ আমাদের জীবন অতিষ্ঠ করে তুলেছে। এই গরমে আমাদের একমাত্র ভরসা ফ্রিজ এবং এসি। এই বিকল্প না থাকলে অনেকেই জানলা খুলে রেখে গরম থেকে মুক্তি পেতে চান। আজ এই প্রতিবেদনে আপনাদের জানাব গ্রীষ্মের মাসগুলোতে আপনার বাড়িকে ঠান্ডা রাখার সবথেকে সহজ এবং সঠিক উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত। আমরা সকলেই জানি বাড়ির চারপাশে গাছপালা যদি ব্যাপক আকারে লাগানো যায় তাহলে বাড়ি অনেকাংশে ঠান্ডা থাকে। উদ্ভিদ সালোকসংশ্লেষের মাধ্যমে কার্বন-ডাই-অক্সাইড শুষে নিয়ে অক্সিজেন দেয় এবং আমাদের জীবন অতিবাহিত করতে সাহায্য করে। এছাড়াও উদ্ভিদের জন্য আমরা আমাদের পৃথিবীকে শীতল হতে দেখি।


আজ এই প্রতিবেদনের মাধ্যমে আপনাদের জানাবো, কোন কোন যদি আপনি বাড়িতে রাখতে পারেন, আপনার ঘর এবং বাড়ি ঠান্ডা থাকবে এবং আপনি গরমের হাত থেকে রক্ষা পাবেন।

রাবার বৃক্ষ: গ্রীষ্মকালে গরমের হাত থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য রাবার প্লান্ট আপনাকে অনেকটাই সাহায্য করতে পারে। এই গাছের পাতা যত বড় এবং শক্ত হবে, বাতাসে তত আদ্রতা থাকবে। এই গাছটি খুব বেশি সূর্যালোকে নয় বরং ছায়াতে রাখবেন আপনার বাড়িতে।

চাইনিজ এভারগ্রীন: বাতাস থেকে বিষাক্ত পদার্থ দূর করার জন্য এই গাছের বিকল্প হয় না। এই গাছটি ঘরের ভেতরে তাপমাত্রা অনেকাংশে ঠান্ডা রাখে। এই গাছটি রক্ষণাবেক্ষণ করার জন্য কম জল এবং কম আলো প্রয়োজন। কি গাছের অনেক বৈচিত্র আপনি পাবেন কিন্তু আপনি যদি নিজের ঘর ঠান্ডা রাখতে চান তাহলে সবুজ পাতা সহ এই গাছটি কিনবেন।

ফিকাস বেঞ্জামিনা: এটি প্রত্যেকটি বাড়ির জন্য ভীষণ ভাবে একটি ভালো উদ্ভিদ হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে বারবার। এটি বাতাসকে আদ্র এবং ঠান্ডা রাখতে সাহায্য করে তাই আপনি এটি যদি বাড়িতে রাখেন তাহলে তাপ থেকে কিছুটা মুক্তি পাবেন আপনি। এটি রক্ষণাবেক্ষণ করার জন্য মাঝারি আলোতে রাখবেন এবং নিয়মিত জল দেবেন।

আরিকা পাম উদ্ভিদ: এই গাছটি সেরা হিউমিডিফায়ার হিসেবে কাজ করে। এই গাছটি সেরা বায়ু পরিষেবা উদ্ভিদ হিসেবে পরিচিত সকলের কাছে। এটি বাতাস থেকে ফর্মাইডিলাইড, টলুইন ও জাইলিন অপসারণ করার পাশাপশি অক্সিজেন নির্গত করতে কার্যকর। এটি হালকা সূর্যালোকে রাখা উচিত।