বুলেট ট্রেনের থেকেও দ্রুত গতিতে ছুটবে বন্দে ভারত, ৪ ঘন্টা’তে পাড়ি দেবে হাজার কিলোমিটার

ভারতবর্ষে শুরু হতে চলেছে বন্দে ভারত এক্সপ্রেস। এতদিন নির্দিষ্ট কিছু রাস্তায় এই ট্রেন চলাচল করত কিন্তু এবার সারা দেশ জুড়ে চলাচল করবে এই ট্রেন। জানা গেছে, বুলেট ট্রেনের গতিও হার মেনে যাবে এই ট্রেনের কাছে। ৪ ঘন্টায় এই ট্রেন অতিক্রম করবে প্রায় ১০০০ কিলোমিটার দূরত্ব। অতিসত্বর সারা ভারতের মাটিতে ভারতীয় প্রযুক্তির জয়ধ্বনি শোনা যাবে এই ট্রেনের হাত ধরে।

ভারতীয় রেলের গর্ব বন্দে ভারত এক্সপ্রেস সম্পূর্ণ ভারতীয় প্রযুক্তিতে তৈরি হয়েছে। ট্রেনে একাধিক এমন অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে যার ফলে শূন্য থেকে ১০০ কিলোমিটার গতিতে পৌঁছানোর জন্য বুলেট ট্রেনকে পিছনে ফেলে দেবে এই ট্রেনের গতি। যেখানে বুলেট ট্রেন ৫৫.৪ সেকেন্ড সময় নেয় ১০০ কিলোমিটার গতিবেগ অতিক্রম করতে সেখানে বন্দে ভারত এক্সপ্রেস মাত্র ৫৪ সেকেন্ডে পেরিয়ে যাবে ১০০ কিলোমিটার। জানা যাচ্ছে, এটি একটি আপডেট ভার্সন ট্রেন। এইখানে এমন কিছু প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে যা শুনলে আপনি অবাক হয়ে যাবেন।

সাধারণত ইঞ্জিন টেনে নিয়ে যায় বাকি সমস্ত কোচগুলোতে কিন্তু এই ট্রেনে রয়েছে স্বয়ংক্রিয় একটি মোটর যার কারণে ট্রেনের সমস্ত বগি গুলি ইঞ্জিনের মতো ছুটতে শুরু করে। আর ঠিক সেই কারণে ট্রেনের গতি অনেক বেশি বেড়ে যায়। ট্রেনের মধ্যে রয়েছে ১৬টি বগি। বর্তমানে বন্দে ভারতে ট্রেনের গতি প্রতি ঘন্টায় ১৬০ কিলোমিটার। নতুন সংস্করণটির গতিবেগ হবে ১৮০ কিলোমিটারের বেশি।

তবে এই ট্রেনের যে আপডেট সংস্করণটি সেটি আসবে ২০২৫ সালে। সেই ট্রেনের গতিবেগ হবে ঘন্টায় ২৬০ কিলোমিটারের বেশি। ট্রেনের গতিবেগ যে ঠিক কত বেশি তার একটি উদাহরণ দিলে হয়তো আপনি আরো ভালো করে বুঝতে পারবেন। এখন যেমন দিল্লি থেকে পাটনা যেতে রাজধানী এক্সপ্রেস ১২ ঘণ্টা সময় নেয়, সেখানে এই ট্রেন মাত্র ৪ ঘন্টায় আপনাকে গন্তব্যস্থলে পৌঁছে দেবে।

দেশের উন্নয়নকে দ্রুত করার জন্য রেলওয়ে বোর্ড সিদ্ধান্ত নিয়েছে সারাদেশে ৪০০ সেন্টিমিটার হাই স্পিড বন্দে ভারত ট্রেন চালানো হবে। এজন্য প্রযুক্তিগত সহায়তার প্রয়োজনে জাপান, ফ্রান্স, চীন এবং জার্মানির মতো উচ্চ ক্ষমতার পাওয়ার লাইন স্থাপন করা হচ্ছে দেশের বিভিন্ন স্থানে।