বছরের পর বছর একে অপরের রক্ত ​​পিপাসু এই বলি তারকারা, তালিকায় রয়েছে সালমান বিবেক সহ আরো অনেকেই

বলিউড ইন্ডাস্ট্রিতে তৈরি হওয়া সম্পর্কের টানাপোড়েন কোন নতুন কথা কিছু নয়। প্রায়শই আমরা দেখতে পাই বন্ধু অথবা ভালোবাসার সম্পর্কে চিড় ধরতে। যদিও কিছু কিছু তারকা এমনও রয়েছে যারা প্রত্যেক সম্পর্কের ক্ষেত্রে ভীষণভাবে সৎ হয়ে থাকেন। বন্ধুত্ব হোক অথবা শত্রু, সর্বক্ষেত্রে তারা নিজেদের জায়গা থেকে কখনো নড়েন না। আজ এই প্রতিবেদনের মাধ্যমে আপনাকে সেই তারকাদের সম্পর্কে অবগত করাব যারা একসময় বন্ধু থাকলেও আজ একে অপরের সঙ্গে শত্রুতা বজায় রেখে চলেছেন।

কঙ্গনা রানাওয়াত এবং হৃত্বিক রোশন: ২০১৬ সালে কঙ্গনা রানাওয়াত এবং ঋত্বিক রোশনের ভালোবাসার কথা ক্রমশ ভাইরাল হয়ে যায়। চলচ্চিত্রে একসঙ্গে অভিনয় করার পর কঙ্গনা রানাওয়াত এবং ঋত্বিক রোশনের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা বৃদ্ধি পায় যার ফলে ঋত্বিক রোশনের বিবাহ বিচ্ছেদ হয়ে যায়। কিন্তু পরবর্তীকালে হৃত্বিক রোশন এই সম্পর্কে আর না থাকার কারণে কঙ্গনা রানাওয়াত বহুবার হৃত্বিক রোশনকে সকলের সামনে ছোট করেছেন এবং বিভিন্ন ব্যক্তিগত মেসেজ এবং ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে দিয়েছেন।

সালমান খান এবং বিবেক ওবেরয়: ঐশ্বর্য রায়কে নিয়ে সালমান খানের সঙ্গে বিবেক ওবেরয়ের যে শত্রুতা তৈরি হয়েছিল তার ফলে আজও বিবেক ওবেরয় বলিউড ইন্ডাস্ট্রিতে সেই ভাবে নিজের জায়গা করে নিতে পারলেন না। ঐশ্বর্য রাই বচ্চনকে বিরক্ত করার কারণে যখন বিবেক ওবেরয় সালমান খানের সঙ্গে যুদ্ধ করতে যান তখন সালমান খান তাকে ইন্ডাস্ট্রি থেকে সরিয়ে ফেলার জন্য পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। অন্যদিকে ঐশ্বর্য রাই বচ্চনও এই ব্যাপার থেকে সরে দাঁড়ান। পরে বিবেক ওবেরয় বারবার ক্ষমা চেয়ে নিলেও সালমান খান কখনো বিবেককে ক্ষমা করেননি।

অজয় দেবগন এবং শাহরুখ: অজয় দেবগন এবং শাহরুখ খান কখনোই ভালো বন্ধু ছিলেন না। কাজল এবং শাহরুখ খানের দুর্দান্ত বন্ধুত্ব হয় এর কারণ। অজয় দেবগন কখনোই শাহরুখ খানকে নিজের বন্ধু বলে মেনে নিতে পারেননি।

প্রিয়াঙ্কা চোপড়া এবং সালমান: বহু সিনেমায় একসঙ্গে কাজ করেছেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া এবং সালমান খান। ভারত সিনেমায় প্রিয়াঙ্কা চোপড়া কাজ করতে রাজি না হন, ঠিক সেই সময় থেকে সালমান খান প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার সঙ্গে কাজ করতে মানা করে দেন।

করণ জহর এবং কঙ্গনা রাওয়াত: এই দুই ব্যক্তির ঝগড়ার কথা আমরা সকলেই জানি। কঙ্গনা রানাওয়াত দাবি করেন করন জহর স্বজনপোষণ করেন এই বলিউড ইন্ডাস্ট্রিতে। যেহেতু কঙ্গনা রানাওয়াত আউটসাইডার তাই তিনি কোনোভাবেই করণ জোহরকে পছন্দ করেন না।

মল্লিকা শেরাওয়াত এবং ইমরান হাশমি: অবাক বলে মনে হলেও মল্লিকা সারাওয়াত এবং ইমরান হাশমির মধ্যে একটি রসায়ন তৈরি হয়েছিল কিন্তু তাদের মধ্যে সেই সম্পর্ক ভেঙে যায় এবং তারা একে অপরের থেকে দূরে সরে যান। পরবর্তী সময়ে করণ জোহরের অনুষ্ঠান ইমরান হাসমির মল্লিকা শেরাওয়াতকে সবথেকে খারাপ অভিনেত্রী হিসেবে চিহ্নিত করেন।