মাত্র ২৫ টাকা বাদাম-এর ধার মেটাতে সদূর আমেরিকা থেকে ভারত এলেন ভাই-বোনের জুটি,আর তারপর যা ঘটলো

আমাদের চারপাশে এমন কিছু ঘটনা ঘটে যা আমরা দেখে থাকি যেগুলো সত্যি আমাদের মনে বিশেষ করে একটি জায়গা তৈরি করে। কখনো যে ঘটনা ঘটে সেটা আমাদের মনে জায়গা তৈরি করে কখনো সেই ঘটনায় জড়িত মানুষগুলির জন্য একটি অন্যরকম মনোভাব তৈরি হয়। সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে আমরা দেশের আনাচে-কানাচে নানান রকম খবরা খবর পেয়ে থাকি যে খবরা-খবর গুলির মধ্যে কোনটা ভীষণ অনুপ্রেরণাদায়ক হয় আবার কোনোটা বেদনাদায়ক।

তবে এই সমস্ত ঘটনা গুলির মধ্য থেকে একটি ঘটনা যা সকলের মনে বিশেষভাবে জায়গা করে নিয়েছে। সেটি হল ধার দেওয়া নিয়ে একটি ঘটনা। ২৫ টাকার ধার মেটানোর জন্য সুদূর আমেরিকা থেকে ভারতে পাড়ি দিলেন ভাই বোনের জুটি। ব্যাপারটি হলো ২০১০ সালে নেমানি এবং সুচিত্রা তাদের বাবা মোহনের সঙ্গে এসেছিলেন অন্ধ্রপ্রদেশের কথাপল্লী সমুদ্রসৈকতে এবং সেখানেই ছিলেন একজন চিনে বাদাম বিক্রেতার নাম সাওায়া। মোহন তার সন্তানদের জন্য চিনেবাদাম কিনেছিলেন সাওায়ার কাছ থেকে,তখন টাকা দিতে গিয়ে মোহন নজর করেছিলেন তার মানি ব্যাগটি তিনি নিয়ে আসেন নি।

এই রকম অবস্থা সাওায়াকে জানানোর পর, ওই চিনে বাদাম বিক্রেতা তাদের বিনা পয়সাতেই চিনেবাদাম দিয়েছিলেন। মোহন জানিয়েছিলেন খুব শিগগিরই তাকে ঋন শোধ করে দেবেন এরপরে যদিও সেই ঋণ শোধ করার সময় মোহন পায়নি। কাজের জন্য তাদের আবার আমেরিকাতে ফিরে যেতে হয়েছিল।

তবে ১১ বছর পর সেই দিনের কথা মনে পড়াতে তার ছেলের নমানি এবং মেয়ে সূচিত্রা সুদূর আমেরিকা থেকে ভারতে ঋণ শোধ করার জন্য এসে পৌঁছালেন। অবশেষে চিনা বাদাম বিক্রেতাকে খুঁজে না পেলে তারা জানতে পারে যে সে চিনে বাদাম বিক্রেতা সাওায়া মারা গেছেন। অবশেষে এই ঘটনায় শোকাহত হয়ে দুই ভাইবোন সহ তাদের বাবা সাওায়ার পরিবারের সঙ্গে দেখা করেন এবং ২৫ টাকার ঋণ শোধ করেন ২৫ হাজার টাকা দিয়ে ।

এরকম একটি মানবিক চরিত্র সোশ্যাল মিডিয়ায় ফুটে উঠতে প্রশংসার ঝড় বইছে মোহন এবং তার দুই সন্তানের উপর।