এই ১০ টি ভুলের জন্য যেকোনো সময় লেগে যেতে পারে স্মার্টফোনে আগুন, ভুলেও করবেন না এই কাজগুলি

আজকের দিনে ছোট থেকে বড় প্রায় সবাই ফোনের প্রতি আসক্ত। এই ফোন ছাড়া কারো এক মুহূর্ত চলার ক্ষমতা নেই। দরকারি কথা বলা হোক, সময় কাটানো হোক, ফোনে গেম খেলা বা ফেসবুক স্ক্রলিং করা এককথায় ফোন ছাড়া কারো এক পাও চলার ক্ষমতা নেই। সময় দেখা থেকে শুরু করে, অ্যালার্ম ক্লক, টর্চ লাইট এবং রেডিও প্রায় সবকিছুই আমরা পেয়ে যাই বর্তমান দিনের স্মার্টফোনগুলোতে। তবে এই স্মার্টফোন ব্যবহারের ক্ষেত্রে আমাদের বিশেষ কিছু সাবধানতা বজায় রাখতে হবে। কিছু কিছু ভুলের কারণে এই স্মার্টফোন গুলি থেকে হতে পারে বিপদ।

ফোনে লেগে যেতে পারে আগুন। আর এর থেকে হতে পারে কোনো বড় দুর্ঘটনা। তবে এমন বিপদজনক ঘটনা হাই এইচডি ব্যাটারি ও ফাস্ট চার্জিং এর ফলে কিছুটা ঘটে। আর এমনই ঘটনা প্রায়ই শোনা যায়। তো এখন জেনে নেওয়া যাক স্মার্টফোন ব্যবহারের দশটি সঠিক নিয়ম-

১| স্মার্টফোন হিট আপ হয়ে গেলে ব্যবহার না করা-

বর্তমানে অনেক ফোন আছে যার মাধ্যমে দীর্ঘক্ষন ধরে কথা বলার ফলে ফোন অতিরিক্ত হিট আপ হয়ে যায় এবং অনেক সময় কিছু কিছু ফোনে চার্জিং এর ফলে অতিরিক্ত হিট আপ হয়ে যায়। আর এই অবস্থাতেই কোনভাবে ফোন ব্যবহার করা উচিত নয়। এতে ফোন বাস্ট হয়ে যেতে পারে।

Advertisements

২| কখনো মোবাইল অতিরিক্ত চার্জ করবেন না-

স্মার্ট ফোন চার্জে দিয়ে কখনো ভুলে যাবেন না। এতে স্মার্টফোন ওভার চার্জ হয়ে যায়। আবার কখনো সারারাত চার্জে দিয়ে ১০০ শতাংশ করবেন না, এতে ফোন দ্রুত নষ্ট হয়ে যায়। এর চেয়ে ৯০ শতাংশ চার্চ করে রেখে দিবেন এতে ফোন বেশি দিন ভালো টেকে।

Advertisements

৩| স্মার্টফোনকে কখনো সূর্যের আলোয় রাখবেন না-

স্মার্ট ফোন গুলিকে কখনো চার্জে দেওয়ার সময় বা এমনি ডাইরেক্ট সূর্যের আলোয় রাখবেন না। এতে স্মার্টফোনগুলো সহজেই হিট আপ হয়ে যায়।

৪| ড্যামেজ অবস্থাতে ডিভাইস ব্যবহার না করা-

স্মার্ট ফোন কখনো কোন কারণে ড্যামেজ হলে সেই অবস্থাতে কখনোই ব্যবহার করবেন না। ড্যামেজ অবস্থায় যদি স্ক্রিন ফেটে যায় বা ফোনের বডি ক্রাক হয় সেই অবস্থাতে ফোনে জল ঢুকে যেতে পারে এবং ব্যাটারি বা অন্যান্য সেনসিটিভ পার্টস জলের এর সংস্পর্শে এসে স্মার্টফোনটি নষ্ট হতে পারে।

৫| থার্ড পার্টির ব্যাটারী ব্যবহার না করা-

আপনার ফোনের ব্যাটারির মেয়াদ কমে আসলে বা ব্যাটারি খারাপ হলে আপনি কোনোভাবেই থার্ড পার্টির কাছ থেকে ব্যাটারি কিনে ব্যবহার করবেন না। যতটা সম্ভব স্মার্টফোনের সার্ভিস সেন্টার গুলি থেকে ব্যাটারি কিনে ব্যবহার করা।

৬| ডুবলিকেট চার্জার ব্যবহার না করা-

স্মার্ট ফোনে কখনো ডুবলিকেট চার্জার ব্যবহার করা উচিত নয়। প্রয়োজন হলে ওই একই ব্র্যান্ডের চার্জার কিনে ব্যবহার করা উচিত।

৭| এক্সটেনশন কড দিয়ে ফোন চার্জ না দেওয়া-

এক্সটেনশন কড ব্যবহার করে আপনি কখনো আপনার ফোন চার্জে দেবেন না এতে আপনার ফোনের বড়োসড়ো ক্ষতি হতে পারে।

৮| স্মার্টফোনে অপ্রয়োজনীয়’ প্রেসার না দেওয়া-

স্মার্টফোন ব্যবহারের ক্ষেত্রে অপ্রয়োজনীয়ভাবে কোন প্রেসার দিবেন না। চার্জিং এর সময় ফোন ব্যবহার করা বা এই ধরনের কোন কাজ করবেন না যাতে ফোনে প্রেসার পড়ে।

৯| গাড়ির চার্জ এডাপ্টার এর থেকে বিরত থাকতে হবে-

গাড়িতে থাকা চার্জ এডাপ্টার এ স্মার্টফোন চার্জ না দিয়ে পাওয়ার ব্যাংক এর সাহায্যে চার্জ দিতে হবে কারণ গাড়িতে থাকা এডাপ্টার বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই থার্ড পার্টি থেকে কেনা হয়।

১০| লোকাল দোকানে ডিভাইস না করা-

লোকাল দোকান থেকে ফোনে কোন সমস্যা হলে কখনোই রিপেয়ার করবেন না সবসময় চেষ্টা করবেন সার্ভিস সেন্টারে গিয়ে ফোন রিপেয়ার করা।