বিগত 100 দিনে যা কাজ হয়েছে গত 60 বছরেও তা হয়নি বক্তব্য মোদী 2.0 সরকারের..

মোদি সরকারের 100 দিন কেমন কাটলো তা নিয়ে শাসকদলের খতিয়ান এবং বিরোধীদলের খতিয়ান তুলে সোশ্যাল মিডিয়ায় এখন শোরগোল পড়েছে।গতকাল হরিয়ানায় গিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী জানিয়েছেন, এবার গত 100 দিনে যা কাজ হয়েছে তা 60 বছরে হয়নি। তিনি এও জানিয়েছেন সদ্য শেষ হওয়া সংসদে একের পর এক বিল পাস হয়ে গেছে। এমনকি সংসদে মধ্যরাত পর্যন্ত অধিবেশন চলে যা রাজনীতির ইতিহাসে আগে কখনো হয়নি বলে মনে করছেন অনেকে।

সেই প্রসঙ্গ তুলে এনে মোদী বলেন, তিন তালাক বিরোধী বিল থেকে শুরু করে জম্মু-কাশ্মীর পুনর্গঠন বিলের মতন নানান গুরুত্বপূর্ণ বিল পাস হয়েছে এই 100 দিনের মধ্যে। এর ফলে সমাজের সুদুরপ্রসারী প্রভাব পড়বে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।
পরের মাস অর্থাৎ অক্টোবরেই হরিয়ানায় 90 টি আসনে বিধানসভার নির্বাচন হওয়ার কথা আছে। তার জন্য আজ থেকে প্রধানমন্ত্রীর হাত ধরে নির্বাচনী প্রচার শুরু করলো গেরুয়া শিবির।


এদিন প্রধানমন্ত্রী তাদের সরকারের দ্বিতীয় ইনিংসের 100 দিনের খতিয়ান তুলে ধরেন সবার সামনে। তিনি জানান এই 100 দিনে কিছু গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।  জম্মু-কাশ্মীর থেকে 370 ধারা তুলে নেওয়া, জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখকে পৃথক কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে ভাগ করে দেওয়া, তিন তালাক বিরোধী আইনের মতন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় এই 100 দিনের মধ্যেই।প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন, দেশের অর্থনীতি মজবুত করতে নানান সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

জম্মু- কাশ্মীর এবং লাদাখকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে ঘোষণা করার মতো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। তিনি এও বলেন, সমস্যার সমাধান করতে সক্ষম হচ্ছেন দেশের সাধারণ মানুষ। সম্প্রতি লোকসভা নির্বাচনে 10 টি আসন বিজেপির দখলে আসে। মোদী জানান, হরিয়ানার সাধারন মানুষ আমাদের যেভাবে সমর্থন করেছেন তাতে আমি অনেক অভিভূত। হরিয়ানার সাধারণ মানুষদের কাছে তিনি যা আশা করেছিলেন তার থেকে অনেক বেশি পেয়েছেন বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

এদিন গত পাঁচ বছরে হরিয়ানার মনোহর লাল খাট্টরে উন্নয়নের তালিকা সবার সামনে প্রকাশ করেন মোদী। এর পাশাপাশি বিরোধী দল কংগ্রেস কে কড়া জবাব দেন তিনি। তিনি বলেন, লোকসভা নির্বাচনে হেরে কি করবেন এখনো পর্যন্ত সেটাই বুঝতে পারছে না বিরোধীরা। বিরোধীরা এতটাই হতাশ হয়ে পড়েছে যে তাদের মুখ দিয়ে কোন কথায় বেরোচ্ছে না।