কাটেনি দুর্যোগের আশঙ্কা, একাধিক জায়গায় ধ্বস নামার সতর্কবার্তা, দেখে নিন আগামী ২৪ ঘন্টা কেমন থাকবে পশ্চিমবঙ্গের আকাশ

এক সপ্তাহ ধরে আকাশের মুখ ভার। ক্রমাগত বৃষ্টি হয়ে চলেছে। তবে এখনই বৃষ্টি থেকে মুক্তি নেই পশ্চিমবঙ্গ বাসীর। আগামী বুধ ও বৃহস্পতিবার কলকাতাসহ দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলিতে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর। অন্যদিকে উত্তরবঙ্গের জেলাগুলিতে আগামী রবিবার পর্যন্ত ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির সর্তকতা জারি করা হয়েছে। দার্জিলিং, কালিম্পং সহ একাধিক জায়গায় ধ্বস নামার সর্তকতা জারি করা হয়েছে। এদিকে বৃষ্টি বারলে একাধিক জায়গায় প্লাবনের আশঙ্কা তৈরি হয়েছে সমগ্র পশ্চিমবঙ্গে।

গত সপ্তাহের মতো এই সপ্তাহের বজায় থাকবে বৃষ্টি। সপ্তাহের প্রথম দিকে রোদের দেখা মিললেও সেই রোদ বেশিক্ষণ স্থায়ী হবে না। আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর এর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে আগামী বুধ এবং বৃহস্পতিবার ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হবে কলকাতাসহ দক্ষিণবঙ্গের একাধিক জেলায়। বিগত কয়েকদিনের বৃষ্টিতে সমস্ত নদীর জল বিপদসীমার উপর দিয়ে বইছে। একাধিক জায়গায় প্লাবন নেমে এসেছে। এখনো পর্যন্ত একাধিক জেলায় জল নামেনি যেখানে খাটাল হাওড়া হুগলি সহ একাধিক জেলা এখনো জলের তলায়। নতুন করে বৃষ্টি হলে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হবে, তা আশঙ্কা করাই যায়।

বৃহস্পতিবারের পর দক্ষিণবঙ্গের বৃষ্টির কিছুটা কমলেও উত্তরবঙ্গে বৃষ্টি বাড়বে বলে জানিয়েছে হাওয়া অফিস। রবিবার পর্যন্ত বীরভূম, মুর্শিদাবাদ, নদিয়া ২ বর্ধমানে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি সর্তকতা জারি করা হয়েছে। আজ থেকে দার্জিলিং ,কালিম্পং , আলিপুরদুয়ার এবং কোচবিহারে বজ্রবিদ্যুৎ-সহ ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর। আবহাওয়া দপ্তরের পক্ষ থেকে দার্জিলিং, কালিম্পং,আলিপুরদুয়ার, কোচবিহার, জলপাইগুড়ি এই জেলাগুলিতে কমলা সর্তকতা জারি করা হয়েছে।

এই জেলাগুলিতে ২০০ মিলিমিটার এর বেশি বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। অন্যদিকে মালদহ এবং দুই দিনাজপুরে জারি করা হয়েছে হলুদ সর্তকতা। ভারী বৃষ্টির সর্তকতা জারি করা হয়েছে বীরভূম, মুশিদাবাদ, নদিয়া, পশ্চিম বর্ধমান এবং দুই ২৪পরগনা তে ওই জেলাগুলিতে ১০০ মিলি মিটার বেশি বৃষ্টিপাত হবে, বলে জানিয়েছেন আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর।আগস্ট মাসে যে গোটা দেশেই ব্যাপক পরিমান বৃষ্টি হবে সে কথা আগেই জানিয়েছিল আইএমডি। তাই আগস্ট মাসের শুরু থেকে পশ্চিমবঙ্গের ব্যাপকভাবে বৃষ্টি শুরু হয়েছে।

একাধিক জেলায় প্লাবনের পাশাপাশি ব্যাপকহারে বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা জানিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর। বিশেষত মৌসুমী অক্ষ রেখা বিহারের পাটনা থেকে অসময়ে অরুণাচল পর্যন্ত সেই কারণে প্রচুর জলীয় বাষ্প যুক্ত শুরু করেছে বাংলায় ফলে দফায় দফায় ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি শুরু হয়েছে। এদিন বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে ডিভিসি জল ছাড়া প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি কে চিঠি লিখেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। গতকালই ঘাটালে বন্যা পরিস্থিতি পরিদর্শন করেছেন তিনি। এরপরই ঘাটাল মাস্টারপ্ল্যান না হওয়া নিয়ে সরব হয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।