চীন এর নতুন ষড়যন্ত্রে হাত মিলিয়েছে তালিবান, পাল্টা জবাবে মাঠে নেমেছে ভারত সরকার

চীনের সাথে যতোই ভারতের ব্যবসা-বানিজ্য নিয়ে আগে ভালো সম্পর্ক থাকলেও আজও চীনের উদ্দেশ্য ভারতের ক্ষতি করা। এই মুহুর্তে চীনের সাথে তালিবানদের ঘনিষ্ট সম্পর্ক গোটা বিশ্বের কাছে চোখে পড়ার মত। যতো দিন যাচ্ছে তালিবানদের সাথে চীন এর একটা সখ্যতা তৈরী হচ্ছে। ইতিমধ্যেই চীন এর বিদেশমন্ত্রী ওয়াও ইয়ের সাথে সাক্ষাত করেছে তালিবান প্রতিনিধি। সেই ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার হতেই এই ছবি ঘিরে নানা রকম জল্পনা কল্পনা শুরু হয়েছে।

সোশ্যাল মিডিয়া মাধ্যমে এই ছবি ভাইরাল হবার পর থেকেই আন্তর্জাতিক মহলে শুরু হয়েছে জল্পনা। এই ছবিতে একই ফ্রেমে চীন এর বিদেশমন্ত্রী ওয়াও ইয়ের ও মোল্লা আবদুল গনি বরাদর তালিবানের প্রতিনিধিকে দেখা যায়। সূত্রের খবর অনুযায়ী, তাদের মধ্যে বেশ খানিক সময় ধরে একটি ব্যাক্তিগত বৈঠক হয়।

আন্তর্জাতিক মহল দাবি করছে, তালিবানদেরকে চীন এর তরফ থেকেই উস্কানি দেওয়া হয়েছে। সূত্রের খবর, চীন এই মুহুর্তে আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনাকে সরিয়ে নিজেদের আধিপত্য বিস্তার করতে চাইছে চীন। এই বিষয়েই বিশেষ করে তালিবানদের সাথে সখ্যতা করেছে চীন।

তালিবানদের সাথে হাতে হাত মিলিয়ে চীন ও পাকিস্তান ভারতের বিভিন্ন রাজ্য ও কিছু গুরুত্বপূর্ণ শহরে সমস্যা তৈরী করতে পারে বলে মনে করছেন ভারতীয় সরকার। ভারতের সীমান্ত নিয়েও তারা সমস্যা তৈরী করতে পারে। তবে ভারত এই বিষয়ে হাত গুটিয়ে বসে নেই। ভারত চীন ও তালিবানদের এই প্ল্যানকে টক্কর দিতে মাঠে নেমে পড়েছেন ভারতের কূটনীতিবিদেরা। তাদের দুই দেশের প্রভাবে যাতে ভারতের বাণিজ্য বা আন্তর্জাতিক ক্ষমতায় যাতে কোন রকম ক্ষতি না হয় সেই চেষ্টায় নেমে পড়েছে ভারত।

প্রসঙ্গত, ২০ বছর পর আফগানিস্তানের মসনদে ক্ষমতা দখল করলো তালিবান। রবিবার আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে ঢুকে পড়ে তালিবানরা, সেই সাথে তালিবানদের দখলে চলে গেল গোটা আফগানিস্তান। তালিবানদের এক প্রতিনিধি জানিয়েছে, তারা কোনরকম যুদ্ধ চায় না, শান্তিপূর্ণ ভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে দাবি করেছিলেন আফগানিস্তানে।