অর্থনীতিকে চাঙ্গা করে তুলতে সহজ শর্তে 10 লক্ষ টাকা পর্যন্ত ঋণ দেবে রাজ্য সরকার, তাই দেরি না করে…

করোনা ভাইরাসের প্রভাবে আমাদের দেশের অর্থনৈতিক দিক থেকে অনেকটা দুর্বল হয়ে পড়েছে। এই অবস্থা থেকে বাদ যায়নি পশ্চিমবঙ্গ। তাই রাজ্যের অর্থনৈতিক পরিস্থিতি চাঙ্গা করতে নয়া পদক্ষেপ নিল রাজ্য সরকার। অর্থনৈতিকে চাঙ্গা করতে মহিলাদের আয়ের উপর জোর দিতে চাইছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকার। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন যে, পুর এবং শহরাঞ্চলে স্বনির্ভর মহিলা গোষ্ঠীকে খুবই সহজ শর্তে 10 লক্ষ টাকা পর্যন্ত ঋণ দেওয়া হবে।

 

যে সমস্ত স্বনির্ভর মহিলা গোষ্ঠীগুলির উৎপাদনকারী কাজের সঙ্গে যুক্ত তাদেরকেই আর্থিক সহায়তা করা হবে বলে জানিয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার। খবর সূত্রে জানা গেছে ইতিমধ্যেই এই আর্থিক সহায়তা দেওয়ার কাজ শুরু হয়ে গেছে। লকডাউনের ফলে রাজ্যের কোষাগারে চাপ পড়েছে। এর জন্য চাপ কমাতে রাজ্যের কোষাগার কে চাঙ্গা করতে এমন সিদ্ধান্ত রাজ্য সরকারের। মহিলাদের আর্থিক সহায়তা করার কারণ রয়েছে। এক সমীক্ষায় দেখা গেছে যে, মহিলারা তাদের আয়ের এর একটা বড় অংশ খরচ করেন শিক্ষা এবং স্বাস্থ্য খাতে।


তাই স্বনির্ভর গোষ্ঠী গুলিকে আর্থিক সহায়তার পরিমাণ বাড়াচ্ছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার। শুধু তাই নয় স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মহিলাদের যদি আয় বাড়ে তাহলে তাদের পরিবারের পক্ষে ভালো। এদিকে যেমন পরিবারে আয় বাড়বে তেমনি আবার শিক্ষা এবং স্বাস্থ্যের দিক থেকেও উন্নত হবে রাজ্য। বর্তমান দিনে যেভাবে জিনিসপত্রের দাম বেড়েছে তাতে একজনের দ্বারা সংসার চালানো প্রায় অসম্ভব হয়ে উঠেছে। তাই বাড়ির মহিলারা যদি আয় করতে থাকে তাহলে তা পরিবারের জন্য খুবই ভালো। আমাদের রাজ্যে মোট 125 টি পৌরসভা এবং 6 টি কর্পোরেশন রয়েছে।

ডাব্লিউবিএসইউএলএমের মাধ্যমে মহিলা স্বনির্ভর গোষ্ঠী গুলিতে আর্থিক সহযোগিতা করে সরকার। পুর- শহরাঞ্চলে 60 হাজারের মতোন স্বনির্ভর গোষ্ঠীকে অর্থ সহযোগিতা করা হচ্ছে রাজ্য সরকারের তরফ থেকে। এতে বার্ষিক সুদের হার মাত্র 7%। সরকার থেকে জানানো হয়েছে প্রথম কিস্তিতে দেড় লক্ষ টাকা পর্যন্ত দেওয়া হবে। সেই টাকা পরিশোধ করার পর বাকি টাকা দেওয়া হবে সরকারের তরফ থেকে। এভাবে ধাপে ধাপে স্বনির্ভর গোষ্ঠী গুলিকে সরকারের তরফ থেকে 10 লক্ষ টাকা পর্যন্ত ঋণ দেওয়া হবে।