মাটি হতে পারে পুজোর আনন্দ, অষ্টমী থেকে দশমী ভাসতে পারে তিলোত্তমা কলকাতা

দরজায় কড়া নাড়ছে বাঙ্গালীদের শ্রেষ্ঠ উৎসব দুর্গাপূজা। গত দুদিন ধরেই দক্ষিণবঙ্গের অস্বস্তিকর গরমে হাঁসফাঁস করছে রাজ্যবাসী।পঞ্চমীর সকালের আকাশ ঢেকে আছে হালকা মেঘ।একেতো বাঙ্গালীদের মনে করোনাকালীন পরিস্থিতি দুর্গাপূজা নিয়ে সংশয় এর অন্ত নেই তার ওপর পঞ্চমী সকাল থেকেই নিম্নচাপের ভ্রুকুটি চিন্তা বাড়াচ্ছে বঙ্গবাসীর। আবহা দপ্তরের সূত্র মতে পুজোর দিন গুলো দক্ষিণবঙ্গের বেশকিছু জেলায় বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

তবে আবহাওয়া দপ্তরের সূত্রে পাওয়া খবরে আপাতত উত্তরবঙ্গের জনগণ পুজোর দিন গুলো বৃষ্টির হাত থেকে রেহাই পাবে ।তবে পুরোপুরি যে রেহায় পাবে তাও বলা যাচ্ছে না কারণ হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে উত্তরবঙ্গের বেশ কয়েকটি জেলায় । সোমবার থেকে দার্জিলিং এবং কালিম্পং এ বৃষ্টি হতে পারে। আপাতত বাকি জেলাগুলির শুষ্ক থাকবে বলেই মনে করা হচ্ছে। উত্তরবঙ্গবাসী ঠাকুর দেখার আনন্দ থেকে খুব একটা বঞ্চিত হবে বলে মনে হচ্ছে না।

তবে এই নিম্নচাপ দক্ষিণবঙ্গে চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে। পঞ্চমী দিন থেকেই আকাশ হালকা মেঘলা থাকবে বলে মনে করা হচ্ছে । তার সাথে উপরি পাওনা হিসেবে রয়েছে অস্বস্তিকর গুমোট গরম ।১৩ ই অক্টোবর থেকে দক্ষিণবঙ্গে বৃষ্টিপাত শুরু হয়ে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে। আবহাওয়ার পূর্বাভাস অনুযায়ী দক্ষিণবঙ্গ বাসীর জন্য পঞ্চমী ষষ্ঠী সপ্তমী ঠাকুর দেখার জন্য আদর্শ সময় । তার কারণ অষ্টমী থেকে বৃষ্টিপাত শুরু হতে পারে। আপাতত ১০,১১,১২ অক্টোবর আবহাওয়ার সেভাবে কোনো পরিবর্তন হবে না।

১৩ ই অক্টোবর অর্থাৎ অষ্টমীর দিন থেকে দক্ষিণবঙ্গে বৃষ্টি শুরু হবে এমনটাই দাবি আবহাওয়াবিদদের।তবে শুধুমাত্র অষ্টমী নয় নবমী ও দশমী পর্যন্ত ভাসতে পারে দক্ষিণবঙ্গের একাধিক জেলা। দুই ২৪ পরগনা , হাওড়া , হুগলি ,কলকাতা অষ্টমী সকাল থেকেই প্রবল বর্ষণে ভাসতে পারে। তবে অষ্টমী থেকে নবমী এবং দশমীতে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ বাড়বে। কার্যত নিম্নচাপের ভ্রুকুটির কারণে দক্ষিণ বঙ্গবাসী পুজোর মেজাজ হারাতে চলেছে। আগামী কয়েক দিনের মধ্যেই ঘূর্ণাবর্ত উড়িষ্যা ও অন্ধ্র প্রদেশ উপকূলে ভ্রুকুটি দেখাতে পারে।

একে করোনাকালীন পরিস্থিতির তার ওপর নিম্নচাপ সব মিলিয়ে পুজোর প্রস্তুতি পুরোদমে চালাচ্ছে কলকাতা পুরসভা।কলকাতা পৌরসভার তরফ থেকে সমস্ত রকম সাবধানতা অবলম্বন করা হচ্ছে।আবহাওয়া দপ্তর সূত্রে পাওয়া খবরে বোঝা যাচ্ছে বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টি তিলোত্তমা কলকাতা পুজোর মহল বিঘ্ন ঘটাতে পারে। তবে এটুকু বোঝা যাচ্ছে কলকাতায় এবং তার সংলগ্ন এলাকা পুজোর ক’দিন আর শরতের নীল সাদা আকাশ দেখতে পাবেনা। কার্যত পুজোর ক’দিন আকাশ ঘোলাটে মেঘে পরিপূর্ণ থাকবে।

আবহাওয়া দপ্তর সূত্রে পাওয়া খবরে ১১ থেকে ১৩ অক্টোবরের মধ্যে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে প্রবল বর্ষণে সম্ভাবনা রয়েছে। কমলা সর্তকতা জারি করা হয়েছে কেরলের একাধিক রাজ্যে। এছাড়া গুজরাট , বিহার , মধ্যপ্রদেশ, ঝাড়খন্ড, উড়িষ্যা, ছত্রিশগড়, কেরল, মহারাষ্ট্র এবং পশ্চিমবঙ্গের বেশকিছু জেলায় আগামী কয়েকদিন প্রবল বর্ষণের সম্ভাবনা রয়েছে । আপাতত এটুকুই বোঝা যাচ্ছে মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে বর্ষা এখনি বিদায় নিচ্ছে না । ফলে পশ্চিমবঙ্গবাসীর কপালে চিন্তার ভাঁজ বাড়িয়ে পুজোর আনন্দে জল ঢালতে চলেছে বৃষ্টি।