২৬ মে নয় বরং তার আগেই বাংলার উপকূলে আছড়ে পড়তে চলেছে বছরের দ্বিতীয় সুপার সাইক্লোন ঝড় যশ

ঘূর্ণিঝড় যশ এর গতিপথ জানা গেল আবহাওয়া দপ্তর সূত্রে । পশ্চিমবঙ্গের উপকূলে আছড়ে পড়তে চলেছে বছরের দ্বিতীয় সাইক্লোন যশ।  26 মে বিকেলে বাংলার উপকূলে এই ঘূর্ণিঝড় আছড়ে পড়বে বলে জানা যাচ্ছে।  আম্ফানের  মতোই শক্তি সঞ্চয় করে আসছে এই ঘূর্ণিঝড়।  বঙ্গোপসাগরে তৈরি হচ্ছে নিম্নচাপ।  নিম্নচাপ ক্রমশ শক্তি বাড়িয়ে ঘূর্ণিঝড়ের আকার নিয়ে বঙ্গোপসাগরের উপকূলে আছড়ে পড়বে বলে জানিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর।

ইতিমধ্যেই আলিপুর আবহাওয়া দপ্তরে বিজ্ঞপ্তি জারি করে জানানো হয়েছে । আজ থেকেই তৈরি হয়েছে নিম্নচাপ । এটি ক্রমশ এগিয়ে যাবে উত্তর উত্তর-পশ্চিম দিকে । 24 মে ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হবে এবং আগামী  24 ঘণ্টার মধ্যেই সেই ঘূর্ণিঝড় তীব্রবেগে এগিয়ে আসবে । 25 তারিখ থেকেই সন্ধ্যে থেকেই শুরু হয়ে যাবে হালকা থেকে মাঝারি এবং ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টিপাত।  দক্ষিণবঙ্গের সমস্ত জেলা এবং উপকূলীয় অঞ্চলে বৃষ্টিপাত হবে।  সময়ের সঙ্গে সঙ্গে বৃষ্টির পরিমাণ বাড়তে থাকবে ।

দেশজুড়ে করোনা আবহে একগুচ্ছ অফারের ঘোষণা Airtel- Jio- Xiaomi সহ একাধিক বড় সংস্থার, মিলবে এক্সট্রা ওয়ারেন্টি সহ ডাটার সুবিধা

 

25 তারিখ সন্ধ্যেবেলা সর্বোচ্চ 70 কিলোমিটার বেগে বাতাস বইতে পারে।  26 তারিখ সকালে বাতাসের গতিবেগ আরো বাড়বে বলে মনে করছেন আবহাওয়াবিদরা এবং ঘূর্ণিঝড় ক্রমশ বাংলা উড়িষ্যা উপকূলের দিকে এগোতে থাকবে। আম্ফানের  স্মৃতি এখনো বাংলার মানুষের মন থেকে মুছে যায়নি। এর মধ্যেই নতুন বিপদের নাম যশ।

দক্ষিণ 24 পরগনা জেলায় প্রায় 3 লক্ষ মানুষকে এর মধ্যেই স্থানান্তর করা হয়েছে।  কোভিড হাসপাতাল গুলোতে বিদ্যুৎ সংযোগ যাতে ঠিক থাকে তার জন্য জেনারেটর বসানোর পরামর্শ দেওয়া হয়েছে প্রশাসনকে। উপকূলবর্তী এলাকায় আগাম সতর্কবার্তা জারি করা হয়েছে । নবান্নে রাজ্যের মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় সাইক্লোন নিয়ে ভার্চুয়াল বৈঠক করেছেন ইতিমধ্যেই।  খাদ্য মজুত রাখার জন্য জেলা গুলিকে সতর্ক করা হয়েছে।