চাপ বাড়ল চীনের, এবার চুক্তিমতো সমস্ত আধুনিক অ্যাপাচে আর চিনুক হেলিকপ্টার হাতে পেল ভারতীয় বায়ুসেনা…

ভারত এবং চীনের সংঘাত এখনো অব্যাহত রয়েছে। যেকোনো সময় যুদ্ধের পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে ভারত এবং চীনের মধ্যে। দুই দেশেই যুদ্ধের প্রস্তুতি নিচ্ছে এই পরিস্থিতিতে। এই আবহে ভারত তাদের সামরিক শক্তি বাড়াতে ব্যস্ত। যেদিন থেকে মোদি সরকার ক্ষমতায় এসেছে সেই দিন থেকে ভারতের সামরিক শক্তি কীভাবে বাড়ানো যায় সেই দিকে লক্ষ্য ছিল তার।বিভিন্ন শক্তিধর দেশগুলোর সঙ্গে সামরিক চুক্তিতে আবদ্ধ হয় ভারত। তাই আগের তুলনায় ভারতের সামরিক শক্তি অনেক গুণ বেড়ে গেছে। যার দরুন ভারত-আমেরিকার সঙ্গে অ্যাপাচে হেলিকপ্টার এবং চিনুক যুদ্ধবিমান কেনার জন্য চুক্তিতে আবদ্ধ হয়।

এই যুদ্ধবিমান গুলি ভারতের হাতে ইতিমধ্যে চলে এসেছে। এই যুদ্ধবিমান গুলো ভারতের কাছে আসার ফলে ভারতীয় বায়ুসেনার শক্তি যে কয়েকগুণ বেড়ে গেল তা নিঃসন্দেহে বলা যেতে পারে। এর আগেও মার্চ মাসের শেষ দিকে 5 টি চিনুক হেভি লিভ হেলিকপ্টার ভারতের কাছে এসেছে। এই দুই ধরনের যুদ্ধবিমানের প্রস্তুতকারক হলো মার্কিন সংস্থা বোয়িং। সম্প্রতি মার্কিন সংস্থা বোয়িং এর তরফ থেকে টুইট করে এই হস্তান্তরের একথা জানানো হয়। মার্কিন সংস্থার ওপর ভরসা রাখার জন্য ইতিমধ্যেই ভারতীয় বায়ুসেনা কে ধন্যবাদ জানিয়েছে বোয়িং।


বায়ুসেনা সূত্রে খবর পাওয়া গেছে যে, হিন্ডন ঘাঁটিতে এই কপ্টার গুলি এসে পৌঁছায়। এরপরে ভারতীয় বায়ুসেনার তরপে লাদাখ সীমান্তে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। কারণ বর্তমানে লাদাখ সীমান্ত এখন উত্তপ্ত।যেকোনো সময় যুদ্ধের পরিস্থিতি শুরু হয়ে যেতে পারে।সম্প্রতি 2015 সালেই আমেরিকার এই সংস্থার সঙ্গে 22টি এএইচ-64ই অ্যাপাচে হেলিকপ্টার এবং 15 টি সিএইচ-47এফ(আই) চিনুক কেনার জন্য ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী তা আবদ্ধ হয়। ভারতসহ বিশ্বের আরো শক্তিশালী 17 টি দেশ এই অ্যাপাচে হেলিকপ্টার ব্যবহার করে।

যেকোনো পরিস্থিতিতে এই কপ্টার শত্রুদের কড়া জবাব দিতে পারবে। সমতল এলাকা হোক বা পার্বত্য এলাকা দিন হোক বা রাত সমস্ত রকম প্রতিকূল পরিস্থিতিতে এই কপ্টারের জুড়ি মেলা ভার। একইভাবে চিনুক যুদ্ধ বিমানের ভূমিকা অপরিসীম যেকোনো পরিস্থিতিতে শত্রুদের জবাব দেওয়ার জন্য। সম্প্রতি কয়েক মাস আগেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দিল্লি সফরে এসেছিলেন তখন তার সাথে 6 টি অ্যাপাচে হেলিকপ্টার কেনার চুক্তি হয় ভারতের সাথে।

Related Articles

Back to top button