একধাক্কায় হু হু করে কমে যাচ্ছে ‘Jio’-র গ্রাহক সংখ্যা, চাপ বাড়ছে মুকেশ আম্বানির

যেমন একসময় হু হু করে বেড়েছিল গ্রাহক সংখ্যা তেমনি এখন একধাক্কায় হু হু করে কমে যাচ্ছে ‘Jio’-র গ্রাহক সংখ্যা, তাই কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়েছে  মুকেশ আম্বানির।  ট্রাই-এর পরিসংখ্যান বলছে, ২০২০ সালের ডিসেম্বরে এক ধাক্কায় রিলায়েন্স জিও-র গ্রাহক সংখ্যা অনেকটা কমে গেছে। বিশেষত হরিয়ানা ও পাঞ্জাবে গ্রাহক সংখ্যা কমেছে৷  রাজধানী দিল্লিতে চলা কৃষক আন্দোলনের জেরেই গ্রাহক সংখ্যা কমছে বলে মনে করছে দেশের সর্ব বৃহৎ টেলিকম অপারেটর সংস্থা রিলায়েন্স জিও।

ভারতের টেলিকম রেগুলেটরি অথরিটি TRAI এর পরিসংখ্যান অনুসারে 2020 এর নভেম্বরে পাঞ্জাবে জিও-র গ্রাহক সংখ্যা ছিল ১.৪০ কোটি। এক মাসের মধ্যে অর্থাৎ ২০২০ এর ডিসেম্বরে গ্রাহক  কমে হয়েছে ১.২৫ কোটি। অন্যদিকে,নভেম্বরের তুলনায় প্রায় সাড়ে পাঁচ লক্ষ গ্রাহক কমেছে হরিয়ানাতে।

কিন্তু কেন হঠাৎ করে গ্রাহক সংখ্যা কমছে? করোনা পরিস্থিতি, সেইসাথে   অন্যান্য টেলিকম সংস্থাগুলোর অপপ্রাচারের জেরেই জিও-র গ্রাহক সংখ্যা কমছে বলে সংস্থার তরফে দাবি করা হয়েছে।

Jio

3 Idiots এর “ফুংসুখ ওয়াংড়ু’র” নতুন আবিষ্কার, মাইনাস তাপমাত্রাতেও ভারতীয় জওয়ানদের লাগবে না ঠান্ডা

Reliance Jio

গত ১০ ডিসেম্বর ট্রাইকে একটি চিঠি লিখে  রিলায়েন্স জানিয়েছিল, ভোডাফোন আইডিয়া লিমিটেড ও ভারতী এয়ারটেলের মতো প্রতিদ্বন্দ্বীরা ক্রমাগত ভুয়ো প্রচার চালাচ্ছে জিও’র নামে৷  তারই প্রভাব পড়েছে সংস্থার গ্রাহকদের মধ্যে।

গ্রাহকরা জানিয়েছেন, পরিষেবা নিয়ে তাদের কোনও অভিযোগ নেই । কৃষি আইন সংক্রান্ত অভিযোগের জন্যই তারা জিও ছাড়তে চান।

Jio

দিল্লিতে আন্দোলনরত কৃষকদের অধিকাংশই মনে করএন,  নয়া কৃষি আইনের ফলে রিলায়েন্সের মত সংস্থাগুলোর লাভ হবে৷ এর আগেও পাঞ্জাব, হরিয়ানায় জিও-র মোবাইল টাওয়ারে ভাঙচুর করার অভিযোগ উঠেছিল কৃষকদের বিরুদ্ধে।

কৃষকরা জানিয়েছিলেন, “রিলায়েন্সের চুক্তি চাষের কারণেই কৃষি আইন তৈরি হয়েছে।” রিলায়েন্সের দাবি , এখন বা ভবিষ্যতে চুক্তি চাষের কোনও পরিকল্পনা  নেই তাদের।