আগামী ১৫ জুলাই পর্যন্ত বেড়েছে রাজ্যের লকডাউন, কী কী বিষয়ে দেওয়া হয়েছে ছাড় দেখে নিন খুঁটিনাটি

ভারতবর্ষে করোনার প্রথম ঢেউ সামলে উঠতে না উঠতেই আছড়ে পড়েছে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ। ভারতের অন্যান্য রাজ্যগুলির মত পশ্চিমবঙ্গেও করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মারাত্মকভাবে এফেক্ট করেছিল। তাই পশ্চিমবঙ্গে আংশিক লকডাউন চালু করা হয়। তবে এখন পশ্চিমবঙ্গের করোনা পরিস্থিতি কিছুটা সামলে উঠেছে। সেই কারণেই এবার লকডাউনের বিধিনিষেধ আস্তে আস্তে আলগা করা হচ্ছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি আজ সাংবাদিক বৈঠকে লকডাউন বাড়ানোর কথা ঘোষণা করলেও লকডাউনের বিধি-নিষেধের কিছুটা ছাড় মিলেছে।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের কবলে পড়ে অন্যান্য রাজ্যের মত পশ্চিমবঙ্গের অবস্থাও আশঙ্কাজনক হয়ে উঠেছিল। দিনে দিনে আক্রান্তের সংখ্যা এবং মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছিল। করোনার কবল থেকে পশ্চিমবঙ্গবাসীকে বাঁচানোর জন্য পশ্চিমবঙ্গে আংশিক লকডাউন করা হয়। এখন অবস্থার অনেকটাই উন্নতি ঘটেছে। তাই লকডাউনের বিধিনিষেধে কিছু কিছু করে ছাড় পাওয়া যাচ্ছে।

আজ মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি নবান্ন থেকে এক সাংবাদিক বৈঠকে ১৫ জুলাই পর্যন্ত লকডাউন বাড়ানোর কথা ঘোষণা করেন। তবে লকডাউন বাড়ালেও বিধি নিষেধের কিছু ছাড় পাওয়া গিয়েছে। এক ঝলকে দেখে নেওয়া যাক কোন কোন জিনিসের উপর বিধিনিষেধের ছাড় পাওয়া গেছে।

১) পশ্চিমবঙ্গের সমস্ত সেলুন এবং পার্লার খোলার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে তবে কর্মীদের টিকাকরণ করানোর পর সেগুলিকে খোলা যেতে পারে।

২) বিধি-নিষেধের মধ্যেও বিভিন্ন সরকারি এবং বেসরকারি বাস, অটো চলার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তবে ৫০% যাত্রী নিয়ে বাস চলবে।

৩) বাজার খোলা থাকার সময় বাড়ানো হয়েছে। ৬-১২ পর্যন্ত বাজার খোলা থাকার অনুমতি পাওয়া গেছে।

৪) সমস্ত দোকান খোলা থাকবে ১১ থেকে ৮ পর্যন্ত।

৫) জিম খোলা থাকবে সকাল ৬টা থেকে ১০টা পর্যন্ত। ৫০% লোক নিয়ে জিম খোলার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

৬) সমস্ত ধর্মীয় অনুষ্ঠানের ক্ষেত্রে কুড়ি জন ব্যক্তি নিয়ে অনুষ্ঠান করা যেতে পারে।