দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে শুভেন্দুর গুরুত্ব, প্রথা ভেঙে বেনজির সিদ্ধান্ত পথে বঙ্গ বিজেপি

এর আগে আমরা দেখেছি বিজেপি হল সভাপতি নির্ভর দল। এবার এই নিয়মের কিছুটা বদল আসতে চলেছে। বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষই হল দলের সর্বেরসর্বা। এবার দিলীপ ঘোষের পাশাপাশি বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীও সমান গুরুত্ব পেতে চলেছেন বিজেপিতে। রাজ্য কর্মসমিতির বৈঠকে সেই প্রস্তাব পেশ হতে পারে। এই প্রস্তাব যদি পাশ হয়ে যায় তাহলে বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের মতোই বিজেপিতে গুরুত্ব অর্জন করবেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী।

তৃণমূলে থাকাকালীন শুভেন্দু অধিকারী একাধিক দায়িত্ব অর্পণ করেছিল। সমস্ত দায়িত্ব ছেড়ে তিনি গেরুয়া শিবিরে যোগ দেন। আর গেরুয়া শিবিরে যোগ দেওয়ার পর সমস্ত পদগুলো থেকে তিনি পদত্যাগ করেন। ঠিক ছিল যদি বিজেপি সরকার রাজ্যে সিংহাসনে বসে তবে শুভেন্দু অধিকারী বড় ধরনের পদের দায়িত্ব পাবেন। কিন্তু বিধানসভা ভোটে পরাজিত হয়ে সেই আশায় বিজেপির জল ঢালা হয়েছে। বিজেপি রাজ্যে যতই পরিচিত হোক নন্দীগ্রামে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি কে পরাজিত করে শুভেন্দু অধিকারী প্রমাণ করেছিলেন যে তিনি হেরে যাবার পাত্র নন।

তাই সমস্ত বিধায়কদের ছেড়ে শুভেন্দু অধিকারী কেই বেছে নেওয়া হয় রাজ্যের বিরোধী দলনেতা হিসেবে। তবে এবার শুভেন্দু অধিকারী কে শুধুমাত্র দলের বিধায়কের পদেই দেওয়া হচ্ছে না। এর সাথে দেওয়া হবে আরও বেশ কয়েকটি দায়িত্ব। এই আলোচনার জন্যই সপ্তাহ খানেক আগে শুভেন্দু অধিকারী কে দিল্লিতে ডেকেছিলেন জেপি নাড্ডা অমিত শাহরা।

আগামী ২৯ জুন মঙ্গলবার হেস্টিংসে বিজেপি দফতরে কর্মসমিতির বৈঠক বসতে চলেছে। এবার হয়তো ওই দলেই নতুন দায়িত্ব পেতে চলেছেন শুভেন্দু অধিকারী। এবার ওই বৈঠকেই আলোচিত হতে পারে রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ এবং শুভেন্দু অধিকারী কে কিভাবে গালি কিভাবে গুরুত্ব দেয়া যায় সেই বিষয়ে আলোচনা তুলে ধরা হবে।