মোদী সরকারের সহায়তায় দেশের কৃষকরা পেতে চলেছেন ফ্রিতে কিষান ক্রেডিট কার্ড, এতে মিলবে…

মোদী সরকার যবে থেকে দেশের দায়ভার সামলেছেন তখন থেকেই দেশের পক্ষে বড় বড় পদক্ষেপ নিতে দেখা গেছে কখনো নোট বন্দির মতো বড় পদক্ষেপ কখনো জিএসটি, আবার কখনো কাশ্মীর থেকে 370 ধারা রদ। আবার কখনো সরকারি কর্মচারীদের পেনশন প্রক্রিয়ায় বড় পদক্ষেপ নিতে, আর এবারও তিনি দেশের কৃষকদের সাহায্য করার জন্য এক নতুন বড় পদক্ষেপ নিতে চলেছেন।দেশের কৃষকদের জন্য তিনি নিয়ে আসতে চলেছেন কিষান ক্রেডিট কার্ড যে ক্রেডিট কার্ডের সমস্ত প্রসেসিং ফি মুকুব করা হচ্ছে।

এর ফলে এই ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে চাষের জন্য মাত্র 4 শতকরা ইন্টারেস্ট লোন পেতে পারেন। এমন কী এই কার্ডের লেজার ফোলিও চার্জ সেটিও বাদ দেওয়া হয়েছে। এমন কী দেশের যদি কোন ব্যাংক এরকম কোন চার্জ কৃষকদের কাছ থেকে সংগ্রহ করে থাকে তাহলে সেই ব্যাংকের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থাও নেওয়া হবে একথাও তিনি জানিয়ে দিয়েছেন। এখান থেকে 3 লাখ টাকা অবদি লোন মিলবে, এরআগে 1 লাখ টাকা অবদি লোন দেওয়া হতো যা পরবর্তীকালে গ্যারান্টি ছাড়াই বাড়িয়ে 1.60 লাখ টাকা করা হয়। কী কী সুবিধা মিলতে চলেছে এই কেসিসি বা কিষান ক্রেডিট কার্ডে… ১) আপনার যদি কৃষিকাজ করার জন্য জমি থেকে থাকে তাহলে এবার থেকে আপনি জমি বন্ধক না রেখে এক লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ নিতে পারেন। তবে এখন RBI এর তরফ থেকে এই লোনের সীমাকে বাড়িয়ে 1.60 লাখ টাকা করা হয়েছে।

২) বর্তমানে দেশে প্রায় 7,02,93,076 জন কৃষকের কাছে কেসিসি রয়েছে। আরে বা দেশের প্রায় সর্বাধিক কৃষককে এর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য সরকার ব্যাংকের সহায়তায় কৃষকদের কিষান ক্রেডিট কার্ড তৈরি করার প্রচার শুরু করে দিয়েছে।আরে টিভি আবেদন করার পক্ষে এটি অতি সহজ করা হয়েছে যাতে সকলেই এই প্রক্রিয়ার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত হতে পারেন। এরই সাথে সাথে এই অ্যাপ্লিকেশন ফর্ম এর পাত্তি তারিখের 14 দিনের মধ্যেই কিষান ক্রেডিট কার্ড বা কেসিসি প্রদানের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে সরকারের তরফ থেকে ব্যাংক গুলিকে।
৩) তবে শুধু তাই নয় পশুপালক ও মৎস্যজীবী কৃষকেরাও এই কিষান ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে প্রতি দু’লাখ টাকা পর্যন্ত 4% সুদের হারে টাকা পেতে পারেন। আর যার ফলে মনে করা হচ্ছে কৃষকেরা এবার থেকে মহাজনদের কাছ থেকে ঋণ নেওয়ার ঝুঁকি থেকে মুক্তি পাবেন।

এবার প্রশ্ন 4 শতাংশ সুদের হারে কৃষি ঋণ পাওয়া যে পদ্ধতি সে ব্যাপারে– যেমনটা আমরা জানি কৃষি কাজের ক্ষেত্রে ঋণের সুদের হার 9%, তবে সরকার তাতে 2% ভর্তুকি দিয়ে থাকে আর এইভাবে এটি 7% হয়ে দাঁড়ায়।আবার যদি সময় মত শোধ করে দেওয়া হয় এই ঋণ তাহলে আপনি আরও তিন শতাংশ ছাড় পেতে পারেন এইভাবে এই কৃষি ঋণের হার সৎ কৃষকদের জন্য মাত্র 4% এ গিয়ে দাঁড়ায়।

তবে এক্ষেত্রে কোন মহাজনই এত সস্তা হারে কাউকে ঋণ প্রদান করতে পারবেন না সুতরাং যদি আপনি কৃষি কাজের জন্য লোন কে ব্যবহার করে থাকেন তাহলে অবশ্যই ব্যাংকে যান এবং একটি কিষান ক্রেডিট কার্ড বানিয়ে ফেলুন যার দরুন আপনি তিন লাখ টাকা পর্যন্ত লোন পেতে পারেন।

Related Articles

Close