রাজ্যের এই 15 টি ট্রেন যেতে চলেছে বেসরকারি খাতে রইল সম্পূর্ণ তালিকা..

ভারতে করোনা সংক্রমণ দিন দিন বেড়েই চলেছে। তবে একদিকে যেমন করোনা সংক্রমণের হার বাড়ছে তেমনি আবার অপরদিকে কিছুটা স্বস্তি দিয়ে বাড়ছে সুস্থতার হার। তবে করানোর জন্য সারা দেশজুড়ে দীর্ঘদিন যাবত লকডাউন ঘোষণা করেছিল কেন্দ্রীয় সরকার। আর এই দীর্ঘমেয়াদি লকডাউনে ভারতের অর্থনৈতিক অবস্থার মুখ থুবড়ে পড়েছে। আর এবার এই করোনা আবহে ভারতীয় রেলের তরফ থেকে নতুন সিদ্ধান্ত নেওয়া হল।

খবর পাওয়া গেছে, রাজ্যের মধ্যে কিছু কিছু ট্রেনকে বেসরকারি সংস্থার হাতে তুলে দেওয়ার জন্য সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে কেন্দ্র। আপনাদের জানিয়ে দিই, আগামী 2023 সালের মধ্যে সারাদেশে মোট 151 টি ট্রেনকে বেসরকারি সংস্থার হাতে তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে নীতি আয়োগ। নীতি আয়োগ এর এই সিদ্ধান্তে সিলমোহর লাগিয়েছে রেলমন্ত্রকও। খবর সূত্রে জানা গিয়েছে এই 151 টি ট্রেনের মধ্যে পশ্চিমবঙ্গ থেকে চলাচল করে এমন 15 টি ট্রেন রয়েছে।

ইতিমধ্যেই প্রাথমিকভাবে বেশ কয়েকটি বেসরকারি সংস্থা এই ট্রেন গুলি চালানোর জন্য ইচ্ছা প্রকাশ করেছে বলে রেলমন্ত্রক সূত্রে খবর পাওয়া গেছে। তাই এই কাজে আর দেরি না করে আগামী সপ্তাহের মধ্যে দরপত্র ডাকাডাকির কাজ শুরু হয়ে যাবে। পূর্ব রেল সূত্রে খবর পাওয়া গেছে যে, এরাজ্যে 15 টি ট্রেনের মধ্যে হাওড়া থেকে 10 টি আসানসোল থেকে 2 টি এবং শিয়ালদা থেকে 1 টি রয়েছে। রেলের এই সিদ্ধান্তের ওপর শুক্রবার দুপুরে বিক্ষোভ কর্মসূচি করেছে রেলের দশটি ইউনিয়ন। এরমধ্যে রয়েছে রেলওয়ে ড্রাইভার অ্যাসোসিয়েশন ইএমআরইউ এর মত সংগঠনগুলি।

এদিন বেলা 11 টার সময় রেলের ইউনিয়নরা শিয়ালদা ডিআরএম অফিসে বিক্ষোভ দেখায়। রেলের এই ইউনিয়ন গুলির দাবি রয়েছে যে, বেসরকারি সংস্থা হাতে চলে যাওয়া ট্রেনগুলো জন্য ধীরগতি সম্পন্ন প্রায় একশো ট্রেন বাতিল করা হচ্ছে। শুধু তাই নয় এই ট্রেন গুলি ছাড়ার 15 মিনিট আগে এবং 15 মিনিট পরে কোন ট্রেন না ছাড়ার জন্য সিদ্ধান্ত নিয়েছে রেল। ইস্টার্ন রেলওয়ে ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক এবিষয়ে জানিয়েছেন যে, ‘ বেসরকারি ট্রেন গুলিকে আগে জায়গা দেওয়ার জন্য সরকারি ট্রেন গুলিকে একেবারে পিছনের সারিতে ফেলে দিচ্ছে রেল।

যদিও এখনো পর্যন্ত টিকিটের চাহিদা 150 শতাংশ রয়েছে। টিকিটের এতটা পরিমাণ চাহিদা থাকা সত্ত্বেও বেসরকারি সংস্থার হাতে কেন তুলে দেওয়া হচ্ছে এনিয়ে দাবি জানান তিনি। রেলকে বেসরকারিকরণ করার দাবিতে লোকসভার বিরোধী দলের নেতা অধীর রঞ্জন চৌধুরী বলেন যে, ‘ রেল কে যদি বেসরকারি সংস্থার হাতে তুলে দেওয়া হয় তাহলে তার যা ভাড়া হবে তা সাধারণ মানুষের আয়ত্বের মধ্যে থাকবে কী?’ এই প্রশ্ন তিনি করেছেন তার কারণ বহু সাধারণ মানুষ রেলে যাতায়াত করেন যা অনেক সুলভ এবং সস্তায় মানুষকে গন্তব্যস্থলে পৌঁছাতে সাহায্য করে।

এবার এক নজরে দেখে নেওয়া যাক এ রাজ্যের মধ্যে কোন 15 টি ট্রেনকে বেসরকারি সংস্থার হাতে তুলে দিতে চলেছে রেল।
1. আসানসোল-পুরী
2.আসানসোল-সুরাট
3. হাওড়া-রাঁচি (ভায়া পুরুলিয়া)
4.হাওড়া-রাঁচি (ভায়া আসানসোল)
5. হাওড়া-পুনে
6. হাওড়া-চেন্নাই
7. হাওড়া-মুম্বাই
8.হাওড়া-সেকেন্দ্রাবাদ
9. হাওড়া-বেঙ্গালুরু
10.হাওড়া-বারাণসী (ভায়া পাটনা)
11. হাওড়া-ভাগলপুর
12. হাওড়া-পুরী (2 টি ট্রেন)
13. হাওড়া-নিউ বঙ্গাইগাঁও
14.হাওড়া-আনন্দবিহার টার্মিনাল
15. শিয়ালদা-গুয়াহাটি

Related Articles

Back to top button