Categories
দেশ নতুন খবর বিশেষ ব্যবসা

কেন্দ্রের তরফে জারি সার্কুলেশন, করোনা মোকাবিলায় আর্থিক অনুদান দিলেই মিলবে না কর ছাড়

গোটা বিশ্বে এখন করোনা আতঙ্ক, আর এই করোনা  মোকাবেলায় একজোট হয়ে লড়ছে গোটা ভারত।আর এরকম এক কঠিন পরিস্থিতিতে দেশের অধিকাংশ মানুষ নিজের সাধ্যমত আর্থিক অনুদান দিয়ে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে রাজ্য সরকার ও কেন্দ্র সরকারের অনুদান তহবিলগুলিতে। আর অনেকে এটাও জানেন যে সরকারি তহবিলে অনুদান দিলে কর্পোরেট সোশ্যাল রেসপনসিবিলিটি বা সিএসআর স্কিমের আওতায় মিলবে কর ছাড়, তবে এই বিষয়টাকে যতটা সহজ মনে করা হচ্ছে ততটা সহজ নয় কিন্তু।

এই বিষয় নিয়ে কেন্দ্র সরকারের তরফ থেকে যে সার্কুলেশন জারি করা হয়েছে সেখানে জানানো হয়েছে যারা সরাসরি পিএম তহবিল ফান্ডে অর্থাৎ PM-CARES ত্রান তহবিলে অর্থ অনুদান হিসাবে দিয়েছেন শুধুমাত্র তারাই এক্ষেত্রে কর ছাড় পাবেন। আর এক্ষেত্রে যদি কোন ব্যক্তি বা কোম্পানি রাজ্য বা মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে টাকা দান করেন তিনি বা তার কোম্পানিটিকে এক্ষেত্রে সিএসআরের আওতায় ফেলা হবে না।গত কয়েকদিন আগে এ ক্ষেত্রে তামিলনাড়ুর মুখ্যমন্ত্রী দপ্তরের তরফ থেকে ঘোষণা করা হয়েছিল যারা রাজ্যের তহবিলে অনুদান করবেন তাদের ক্ষেত্রেও কর ছাড় মিলবে। যার দরুন বিভিন্ন কর্পোরেট কোম্পানি গুলিকে এবং ব্যবসায়ীদের আর্থিক দিক থেকে পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানানো হয়েছিল। যদিও এ বিষয় নিয়ে কেন্দ্রীয় কর্পোরেট মন্ত্রকের তরফ থেকে যে বিবৃতি জারি করা হয় সেখানে জানানো হয় COVID-19 এর মোকাবিলা করার জন্য যে মুখ্যমন্ত্রী রাজ্যের তহবিল গুলি তৈরি করা হয়েছে সেগুলি CSR ব্যয়ের মধ্যে  পড়ে না।তবে এখানে এ কথা স্পষ্ট করে বলা হয়েছে যদি কোন রাজ্য বিপর্যয় মোকাবিলা অথরিটিতে SDMA আর্থিক অনুদান দিয়ে থাকে তাহলে তা কোম্পানি আইন 2013 অনুযায়ী সিএসআরের আওতায় পড়বে।এর পাশাপাশি কেন্দ্রের তরফ থেকে আরও একটি কথা বলা হয় যেখানে জানানো হয় কোন কোম্পানি যদি এই সময় তার কর্মীদের এক্স গ্ৰাসিয়া প্রদান করে তাহলে ব্যাতিক্রম হিসাবে তা সিএসআর এর ব্যয়ের মধ্যে থাকবে। যদিও এখন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির পিএম Cares ত্রান তহবিলের কথা ঘোষণা করার আগেই,এই ভাইরাস মোকাবিলা তে মুখ্যমন্ত্রী তথা রাজ্য সরকারের তহবিলে অনেকেই আর্থিক অনুদান প্রদান করেছেন।তবে কেন্দ্রের এই নতুন সার্কুলেশন জারি করার পর এবার কর ছাড় পাওয়ার উপর তাদের প্রশ্নচিহ্ন উঠে গেল।